দেশের শীর্ষ ১০ করদাতা

tax payer২০১৪-১৫ করবর্ষে আয়কর বিবরণীর ভিত্তিতে ব্যক্তিপর্যায়ে সর্বোচ্চ কর প্রদান করেছেন এক্সিম ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মজুমদার। ১৯০ কোটি ২৬ লাখ ৪২ হাজার টাকা আয়ের বিপরীতে তিনি কর পরিশোধ করেছেন ১০ কোটি ৭৩ লাখ ২৭ হাজার টাকা। শীর্ষ ১০ করদাতার তালিকায় আরো আছেন বসুন্ধরা গ্রুপ ও ট্রান্সকম গ্রুপের দুজন করে সদস্য। বর্তমান সরকারের একজন মন্ত্রীও আছেন এ তালিকায়। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

দেশের বড় করদাতারা জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) বৃহৎ করদাতা ইউনিটের (এলটিইউ) আওতায় কর পরিশোধ করেন। ২০১৪-১৫ করবর্ষের আয়কর বিবরণীর ভিত্তিতে সর্বোচ্চ করদাতা ২৫ ব্যক্তির একটি তালিকা করেছে সংস্থাটি। ঢাকা ও চট্টগ্রামের দুটি এলটিইউতে আয়কর বিবরণী জমা দেন ওই করদাতারা।

বিবরণী অনুযায়ী, সবচেয়ে বেশি কর প্রদান করেছেন নাসা গ্রুপ ও এক্সিম ব্যাংকের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মজুমদার। জানতে চাইলে বণিক বার্তাকে তিনি বলেন, ব্যবসায় আয় করে যে মুনাফা হয়েছে, তার ওপর যথাযথ কর প্রদান করেছি। সরকারের উচিত, আমরা যারা শীর্ষ তালিকায় আছি, তাদের বিশেষ সুবিধা দেয়া; কমপক্ষে ১ কোটি টাকা হলেও বিশেষ ছাড় দেয়া। এতে আমরা যেমন উত্সাহিত হব, অন্যরাও উত্সাহিত হবেন।

শীর্ষ করদাতাদের মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন গাজী গ্রুপের কর্ণধার গোলাম দস্তগীর গাজী। তিনি পরিশোধ করেছেন ১০ কোটি ৪৫ লাখ ১২ হাজার টাকার কর। করবর্ষটিতে তিনি আয় দেখিয়েছেন ২৭ কোটি ৯৯ লাখ ৮৭ হাজার টাকা। তৃতীয় শীর্ষ করদাতা বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা আহমেদ আকবর সোবহানের স্ত্রী আফরোজা বেগম। তিনি ১৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা আয়ের বিপরীতে কর পরিশোধ করেছেন ৫ কোটি ৮ লাখ ৭২ হাজার টাকা। চতুর্থ অবস্থানে রয়েছেন তার ছেলে সাদাত সোবহান। তিনি কর পরিশোধ করেছেন ৩ কোটি ৯৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা। আর প্রদর্শিত আয় ১০ কোটি ৬৩ লাখ ৭৭ হাজার টাকা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বসুন্ধরা গ্রুপের গণমাধ্যম উপদেষ্টা মোহাম্মদ আবু তৈয়ব বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপের সদস্যরা দেশের আইন মেনে কর পরিশোধ করেন। সঠিক হিসাবের ভিত্তিতে যে পরিমাণ কর পরিশোধযোগ্য, সে পরিমাণ কর পরিশোধ করেন।

শীর্ষ করদাতার তালিকায় পঞ্চম অবস্থানে আছেন ট্রান্সকম গ্রুপের চেয়ারম্যান লতিফুর রহমান। ২০১৪-১৫ করবর্ষে তিনি পরিশোধ করেছেন ৩ কোটি ৮৫ লাখ ৩১ হাজার টাকা। তার প্রদর্শিত আয় ১০ কোটি ৪০ লাখ ৯২ হাজার টাকা। আর তালিকায় নবম স্থানে আছেন ট্রান্সকম গ্রুপের আরেক সদস্য সাইফুর রহমান। তিনি পরিশোধ করেছেন ২ কোটি ৮০ লাখ ৪০ হাজার টাকা। তার প্রদর্শিত আয় ৮ কোটি ৩৫ লাখ ৬২ হাজার টাকা। এছাড়া শীর্ষ করদাতাদের তালিকায় ষষ্ঠ অবস্থানে আছেন বর্তমান সরকারের পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ৬ কোটি ৮৭ লাখ ৩০ হাজার টাকা আয়ের বিপরীতে তিনি কর পরিশোধ করেছেন ৩ কোটি ৩২ লাখ ৮ হাজার টাকা।

এ প্রসঙ্গে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, মানুষ সম্পদ অর্জন করে সমৃদ্ধির জন্য। কিন্তু উপার্জিত অর্থের একটি অংশ রাষ্ট্রের পাওনা। এটা পরিশোধের মাধ্যমে অর্থ বৈধতা পায়। আর সত্ভাবে উপার্জনকারীরা এক ধরনের মানসিক প্রশান্তি পান। রাষ্ট্র ও সমাজের উন্নয়নে সব সক্ষম ব্যক্তির কর দেয়া উচিত।

তিনি বলেন, পাকিস্তান আমল থেকেই আমি কর দিয়ে আসছি। পাশাপাশি আমার পরিবারের অন্য সদস্যরাও নিয়মিত কর পরিশোধ করেন। এভাবে সবাই কর পরিশোধে এগিয়ে এলে দেশ দ্রুত এগিয়ে যাবে।

শীর্ষ ১০ করদাতার তালিকায় সপ্তম অবস্থানে আছেন ইস্টার্ন হাউজিংয়ের চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল ইসলাম। তিনি পরিশোধ করেছেন ৩ কোটি ১ লাখ ১০ হাজার টাকা। তার প্রদর্শিত আয় ৮ কোটি ১৫ লাখ ৮০ হাজার টাকা। অষ্টম অবস্থানে আছেন ইউনিক গ্রুপের চেয়ারম্যান সেলিনা আলী। তার পরিশোধ করা করের পরিমাণ ২ কোটি ৮৮ লাখ ৪৭ হাজার টাকা। আর প্রদর্শিত আয় ৭ কোটি ৮২ লাখ ৬৮ হাজার টাকা। দশম অবস্থানে আছেন সিনহা গ্রুপের অন্যতম কর্ণধার আনিসুর রহমান সিনহা। ৩৮ কোটি ৬ লাখ ৭৭ হাজার টাকা আয়ের বিপরীতে তিনি কর পরিশোধ করেছেন ২ কোটি ৪৭ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।

রাজস্ব সংশ্লিষ্টরা অবশ্য মনে করেন, দেশে বর্তমানে যে সংখ্যক ধনী মানুষ রয়েছে, সে অনুপাতে কর সরকারের কোষাগারে জমা হয় না। কর ফাঁকির সংস্কৃতি দুর্নীতির মতো সুদূরপ্রসারী। তাদের মতে, তদারকি ব্যবস্থা জোরদার করা গেলে কর আহরণ আরো বাড়ানো সম্ভব।

এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান ড. আবদুল মজিদ এ প্রসঙ্গে বলেন, কেউ সর্বোচ্চ করদাতা হওয়া মানেই কমপ্লায়েন্ট করদাতা নয়। প্রকৃতপক্ষে কেউ আয় গোপন করে কর ফাঁকি দিচ্ছেন কিনা, সে বিষয়ে নজরদারি বাড়াতে হবে। আর এলটিইউ যেহেতু বড় করদাতা ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কর আহরণ করে, সেজন্য এলটিইউর সক্ষমতা আরো বাড়াতে হবে।

আয়কর বিবরণীর ভিত্তিতে শীর্ষ ২৫ করদাতার তালিকায় আছেন যথাক্রমে জাফর আহমেদ, রাগীব আলী, ড. জহুর আহমেদ, মোস্তফা হায়দার, মো. আনোয়ার হোসেন, মো. নূর আলী, শাহনাজ রহমান, নাফিস শিকদার, আব্দুল মোসাব্বির আহমেদ, মোস্তফা কামাল, কাশ্মীরি সুলতানা, মোয়াজ্জেম হোসেন, আজিম উদ্দিন আহমেদ, সৈয়দ আবুল হোসেন ও মেহদাদুর রহমান। সংবাদ- বণিকবার্তা।