নির্মানাধীন বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ মসজিদে প্রথম জুমা আদায়

mosjidরাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার এন-ব্লকে নির্মানাধীন বাংলাদেশের বৃহত্তম মসজিদে আজ (২৪ জুন) প্রথম জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ফকিহুল মিল্লাত মুফতি আবদুর রহমান (রহ.) নামের এই জামে মসজিদের প্রথম জুমায় অংশ নেন প্রায় সাড়ে পাঁচশ’ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি। জুমার নামাজে ইমামতি করেন মুফতি নুর মুহাম্মদ।

নির্মাণাধীন এ মসজিদে চলতি বছর পয়লা রমজান থেকে খতমে তারাবি আদায় করা হচ্ছে। তারাবি পড়াচ্ছেন হাফেজ মোজাম্মেলুল হক ও হাফেজ ওবায়দুল কাদের। এছাড়া পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের ইমামতি করছেন মুফতি সফিউল্লাহ। আজশুক্রবার (২৪ জুন) থেকে মসজিদটিতে জুমার নামাজ আদায় শুরু হলো। ১০তলা বিশিষ্ট মসজিদটির প্রতি ফ্লোরে রয়েছে প্রায় ৫০ হাজার বর্গফুট জায়গা। নির্মাণ কাজ শেষ হলে এই মসজিদে ৫০ হাজারেরও বেশি মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। মসজিদে থাকবে চারটি সিড়ি, একটি চলন্ত সিড়ি ও দু’টি লিফট। তৈরি করা হবে ১২০ ফুট উঁচু মিনার। অত্যাধুনিক অজুখানা ও নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধাসহ মসজিদে ব্যবহার করা হবে উন্নতমানের টাইলস। নির্মান সংশ্লিষ্টরা জানান, এটি শুধু বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ মসজিদই নয়, দক্ষিণ এশিয়ারও অন্যতম বৃহৎ একটি মসজিদ। দেশের সর্ববৃহৎ মসজিদে প্রথম জুমার নামাজ আদায়ে দূর-দূরান্ত থেকে এদিন হাজির হন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা। বসুন্ধরা ছাড়াও অন্য এলাকা থেকেও ছুটে আসেন মুসল্লিরা। কুড়িল চৌরাস্তা থেকে প্রায় ছয় কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে এই মসজিদে নামাজ পড়তে আসেন জুয়েল নামের এক ব্যক্তি। তিনি বলেন, ”বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় মসজিদের প্রথম জুমা। এই সুযোগ তো আর পাওয়া যাবে না। বাইক আছে, রাস্তাও ভালো। তাই মটরসাইকেল টান দিয়ে চলে আসলাম।”