তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ মুনাফা স্যামসাং ইলেকট্রনিকসের

base_1480345791-yeosu-expo-samsung-pavilion

২০১৬ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর) স্যামসাং ইলেকট্রনিকসের মুনাফা তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছবে। ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস গ্যালাক্সি নোট ৭ ব্যর্থতা সত্ত্বেও এমনটাই প্রত্যাশা করা হচ্ছে। কোম্পানিটির মেমোরি চিপ ও ডিসপ্লে বিক্রিতে উল্লেখযোগ্য প্রবৃদ্ধি বিপত্তি কাটিয়ে মুনাফা বাড়াতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে। সম্প্রতি টমসন রয়টার্সের বিশ্লেষকরা এনটাই পূর্বাভাস দিয়েছেন। খবর ইটি টেলিকম।

বহুপ্রত্যাশিত গ্যালাক্সি নোট ৭ গত বছর সেপ্টেম্বরে উন্মোচন করে স্যামসাং। কিন্তু এ ডিভাইস উন্মোচনের পর পরই বড় ধরনের সমালোচনার মুখে পড়ে দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক কোম্পানিটি। ডিভাইসটি উন্মোচনের কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ব্যাটারি বিস্ফোরিত হয়ে অগ্নিদুর্ঘটনার একাধিক অভিযোগ আসতে থাকে। ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তার স্বার্থে প্রথম ধাপে সরবরাহ করা ২৫ লাখ ডিভাইস প্রত্যাহার করে নেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়। দুই সপ্তাহ সময় নিয়ে ডিভাইসগুলো পরিবর্তনও করে দেয়া হয়।

বিশ্বব্যাপী পরিবর্তিত ডিভাইস নিয়েও একই ধরনের অভিযোগ আসতে থাকলে সুনাম ধরে রাখা নিয়ে শঙ্কায় পড়ে স্যামসাং। গ্যালাক্সি নোট ৭ স্মার্টফোনের বিক্রি বন্ধের পাশাপাশি স্থায়ীভাবে ডিভাইসটির উত্পাদন বন্ধ করা হয়।

বিশ্লেষকরা জানান, গ্যালাক্সি নোট ৭ বিপত্তির কারণে স্যামসাংয়ের ক্ষতির পরিমাণ ২১০ কোটি ডলার ছাড়িয়ে যাবে। এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে কোম্পানিটির চতুর্থ প্রান্তিকের আর্থিক খতিয়ানে।

বিনিয়োগকারীদের জন্য ইতিবাচক বিভিন্ন সমালোচনার সমাপ্তি ঘটিয়ে মেমোরি চিপ ও অর্গানিক লাইট-এমিটিং ডায়োড বা ওএলইডি ডিসপ্লেতে ভর করে উল্লেখযোগ্য মুনাফা আয়ের পূর্বাভাস দিয়েছেন বিশ্লেষকরা। শিগগিরই গত বছর চতুর্থ প্রান্তিকের আর্থিক খতিয়ান প্রকাশ করবে স্যামসাং। ধারণা করা হচ্ছে, ২০১৭ সালজুড়ে কোম্পানিটির মুনাফা প্রবৃদ্ধির ধারা অভ্যাহত থাকবে।

রয়টার্সের পূর্বাভাস অনুযায়ী, অক্টোবর-ডিসেম্বর প্রান্তিকে এক বছর আগের একই সময়ের চেয়ে স্যামসাংয়ের মুনাফা ৩৭ শতাংশ বেড়ে ৭০০ কোটি (৮ দশমিক ৪ ট্রিলিয়ন ওন) ডলার ছাড়িয়ে যাবে; যা ২০১৪ সালের প্রথম প্রান্তিকের পর এবারই প্রথম সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছানোর প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

বলা হচ্ছে, স্যামসাংয়ের মেমোরি চিপ ব্যবসা বিভাগের আয়ে উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়েছে। গত বছরের চতুর্থ প্রান্তিকে মোট পরিচালন মুনাফায় এ বিভাগের অবদান দাঁড়াবে ৫০ শতাংশ।

বিশ্বব্যাপী মোবাইল ডিভাইসের চাহিদা সামান্য পরিমাণে হলেও বাড়ছে। মোবাইল ডিভাইস, বিশেষ করে স্মার্টফোনের সক্ষমতা বাড়াতে মেমোরি চিপ গুরুত্বপূর্ণ একটি অনুষঙ্গ। গত বছরজুড়ে মেমোরি চিপের চাহিদা বৃদ্ধির পাশাপাশি মূল্য বেড়েছে। বিশেষত, থ্রিডি এনএএনডি চিপের চাহিদা ও দাম বেড়েছে উল্লেখযোগ্য; যা স্যামসাংয়ের মুনাফা বাড়াতে ভূমিকা রেখেছে। এ ধরনের চিপ ব্যবসা খাতে স্যামসাংয়ের বড় দুই প্রতিদ্বন্দ্বী তোশিবা ও এসকে হাইনিক্স।

চতুর্থ প্রান্তিকে স্যামসাংয়ের সেমিকন্ডাক্টর বিভাগের মুনাফা ৪ দশমিক ৫ ট্রিলিয়ন ওন ছাড়িয়ে যাওয়ার প্রত্যাশা করা হচ্ছে। এমনটা হলে গত বছর বিভাগটির মুনাফার পরিমাণ দাঁড়াবে ১৩ দশমিক ১ ট্রিলিয়ন ওন।