ক্রিকেট নিয়ে বাজিতে হেরে যুবকের আত্মহত্যা

uttamক্রিকেট খেলায় মোটা অংকের টাকা বাজি ধরে হেরে গিয়ে নিজের জীবনকে বিসর্জন দিলেন উত্তম দেবনাথ ওরফে দেব (২৬) নামের এক যুবক। তিনি ডুমুরিয়া উপজেলার গুটুদিয়া গ্রামের অরুণ দেবনাথের ছেলে।

গত ১৪ জুন বুধবার ইংল্যান্ড বনাম পাকিস্তানের একটি খেলাকে কেন্দ্র করে গোপালগঞ্জ জেলার মকসুদপুর থানার কমলাপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকাস্থ আশুতোষ অধ্যাপকের ভাড়া বাড়িতে গলায় গামছা পেঁচিয়ে তিনি আত্মহত্যা করেন বলে জানা গেছে।

আত্মহত্যার আগে ১৪ জুন রাত ১১টা ২৪ মিনিটে দেব তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখে গেছেন, জীবনকে বাজি ধরে আজ আমি হেরে গেলাম, তাই নিজের জীবনকে নিজেই বিসর্জন দিলাম। মাপ করে দিও তোমরা আমাকে। মরতে চাইনি আমি কখনো, তোমরা আমাকে মরতে বাধ্য করেছো।’ শুক্রবার সকালে তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া নিজ এলাকা গুটুদিয়া মঠ আশ্রম মহাশশ্মানে সম্পন্ন করা হয়েছে।

নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার গুটুদিয়া গ্রামের অরুন দেবনাথের ছেলে উত্তম দেব ২ বছর ধরে গোপালগঞ্জ জেলার মকসুদপুরে চাকরি করতেন। সেখানে থেকে সে গত আইপিএল খেলায় তার গ্রামের বন্ধুদের সঙ্গে বাজি ধরেন।

তারই ধারাবাহিকতায় গত ১৪ জুন চ্যাম্পিয়নস ট্রফি’র ইংল্যান্ড বনাব পাকিস্তানের সেমিফাইনাল খেলায় এলাকার বন্ধুদের সঙ্গে মোটা অংকের টাকায় বাজি ধরেন। উত্তম ছিলেন ইংল্যান্ড দলের পক্ষে।

বাজিতে হেরে গিয়ে ওইদিন রাতেই তার ফেসবুকে তার আত্মহত্যার রহস্যের আংশিক বিবরণ লিখে পোস্ট করে আত্মহত্যা করেন তিনি।

উত্তমের বড় ভাই অমিত দেবনাথ বলেন, আমার ভাই পাড়ার কিছু মানুষের সঙ্গে ক্রিকেট খেলায় বাজি ধরছে শুনেছি। প্রতিবেশী এক যুবকের মাধ্যমে খেলায় অর্থ লেনদেন করতো সে।

এ প্রসঙ্গে মকসুদপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক দেলোয়ার হোসেন বলেন, থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।