বিদেশে এ বছর ১২ লাখ শ্রমিক পাঠানোর পরিকল্পনা

hurul islam bscপ্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেছেন, র্দীঘ আট বছর পর আরব আমিরাতে শ্রমিক পাঠানোর সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে সরকার। এখন আরব আমিরাতের চাহিদা জানার অপেক্ষা। চাহিদাপত্র পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই শ্রমিক পাঠানো শুরু হবে।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার সরকারই প্রথম গত বছর ১১ লাখ শ্রমিক বিদেশ পাঠাতে সক্ষম হয়েছে। চলতি বছরে ১২ লাখ শ্রমিক পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

শনিবার সিলেট কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে বিদেশগামী কর্মীদের স্মার্টকার্ড প্রদান বিকেন্দ্রীকরণ এবং বৈদেশিক কর্মসংস্থানে দক্ষকর্মী প্রেরণের লক্ষ্যে ড্রাইভিং, ক্যাটারিং ও ভাষা প্রশিক্ষণ এবং অনলাইন ভর্তি কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেন, বিদেশে অধিক কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে প্রযুক্তিনির্ভর উন্নত প্রশিক্ষণে প্রশিক্ষিত করে দক্ষতা বৃদ্ধি করতে বর্তমান সরকার অঙ্গীকারবদ্ধ। সে লক্ষ্যে প্রতিনিয়ত বিদেশি মিশনগুলোয় যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে সব ধরনের কাজের জন্য দক্ষ ও প্রশিক্ষিত শ্রমিক রয়েছে। তবে তা নির্ভর করবে আরব আমিরাতের চাহিদার ওপর।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মধ্যপ্রাচ্যগামী নারী শ্রমিকদের সতর্ক করে মন্ত্রী বলেন, বিদেশে যাওয়ার পর টাকা বেশি রুজির আশায় মালিক পরিবর্তন করেন। ফলে তারা বিপদেও পড়েন। আর মালিকানা পরিবর্তনের ফলে তারা আমাদের ওপর আস্থা হারিয়ে ফিলিপাইন থেকে নারী শ্রমিক নিচ্ছে।

নারী শ্রমিকদের অনুরোধ করে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী বলেন, যেখানে যে কাজে যাবেন সেখানে সে কাজ ভালোভাবে করবেন। এতে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে। আপনি যে দেশেই যান আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে যাবেন। তখন আমরা আপনার সম্পর্কে অবগত থাকব। কোনো সমস্যায় পড়লে সহযোগিতা করতে পারব।

তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি জেলায় আমাদের অফিসে যোগাযোগ করবেন। অফিসে পরামর্শ মেনে যে কোনো দেশে গেলে আপনি কোনো ধরনের ঝামেলায় পড়বেন না। না জানিয়ে দালাল ও প্রতারকের মাধ্যমে গেলে আমাদেরও কিছু করার থাকবে না। মন্ত্রী আরও বলেন, বর্তমান সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণেও বদ্ধপরিকর। সে লক্ষ্যে সরকারি সেবাগুলো বিকেন্দ্রীকরণ এবং সহজীকরণের কাজ করে যাচ্ছে সরকার। সে লক্ষ্যে বিদেশগামী কর্মীদের সব প্রকার হয়রানি বন্ধ এবং সেবা সহজীকরণে তার মন্ত্রণালয় বদ্ধপরিকর।

সিলেটের জেলা প্রশাসক নুমেরী জামানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিলেট কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রকৌশলী ওয়ালীউল্লাহ মোল্লা।

সংস্কৃতিকর্মী সাইমুম ইভানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সিলেট-২ আসনের এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী, সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার ড. মোসাম্মৎ নাজমানারা খানুম, জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব সেলিম রেজা, আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার চিফ অব মিশন আবদুস সাত্তার ইউসুফ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এর আগে ওমান ও কাতারগামী পাঁচ শ্রমিকের হাতে স্মার্টকার্ড এবং প্রবাসীকল্যাণ ব্যাংকের পক্ষ থেকে দুজন বিদেশগামীকে ঋণের চেক হাতে তুলে দেন মন্ত্রী।