cosmetics-ad

কর্মী হিসেবে বিদেশ যেতে যেসব বিষয় জানতে হবে

saudi-probashi

কাজের সন্ধানে অনেকেই বিদেশে পাড়ি জমান। রাতারাতি ভাগ্যের চাকা ঘোরাতে মরিয়া হয়ে ওঠেন তারা। এতে প্রতারণার শিকারও হয়ে থাকেন। অবৈধভাবে বা সঠিক নিয়ম না জেনে বিদেশে গিয়ে পড়েন বিপাকে। অথচ তাদের জন্য প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় কাজ করে যাচ্ছে। তাই কর্মী হিসেবে বিদেশ যাওয়ার আগে কিছু বিষয় জানতে হবে—

সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে: বিদেশ যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগেই আপনাকে কিছু তথ্য জানতে হবে—

১. কাজের নাম, ধরন ও কোম্পানির নাম
২. কর্মস্থলের পরিবেশ, বেতন-ভাতা, শ্রমঘণ্টা
৩. কাজের ভিসা (স্টুডেন্ট বা ট্যুরিস্ট নয়)
৪. কাজের চুক্তিপত্র

amirat-bangladeshi৫. বাংলাদেশের রিক্রুটিং এজেন্সির নাম-ঠিকানা
৬. আরএল নম্বর বা মোবাইল নম্বর
৭. ফ্রি ভিসায় কোন কাজের নিশ্চয়তা নেই।

যাওয়ার আগে দক্ষতা: সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর সব কিছু নিশ্চিত হলেও কিছু কাজ জরুরি। জরুরি সেই কাজগুলো নিজেকেই করতে হবে—

১. টিটিসিসমূহ থেকে বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণ নেওয়া
২. হাতেকলমে শিক্ষার মাধ্যমে পাওয়া অভিজ্ঞতা
৩. অন্যান্য কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে বৃত্তিমূলক শিক্ষা নেওয়া
৪. বিদেশ গমনেচ্ছু কর্মীদের ডাটাবেজে অন্তর্ভুক্ত হওয়া
amirat-bangladeshi
৫. দালাল বা মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের পরিবর্তে সরাসরি এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করা
৬. নির্ধারিত অভিবাসন ব্যয়ের অতিরিক্ত অর্থ না দেওয়া
৭. যে দেশে যাচ্ছেন; সেই দেশের ভাষা ও সংস্কৃতি সম্পর্কে জানা
৮. নিজের ও পরিবারের নামে আলাদা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট করা

উপর্যুক্ত বিষয়গুলো জেনে এবং মেনে বিদেশে গেলে প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। ফলে লাখ লাখ টাকা খরচ করার আগে বিনা পয়সায় বিষয়গুলো সম্পর্কে ধারণা নিন। প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট সরকারি দফতরে সহায়তা নিন।