Search
Close this search box.
Search
Close this search box.

মিয়ানমার-বাংলাদেশ সাইবার যুদ্ধ

cyber-warকোনো ঘোষণা ছাড়া হঠাৎ করেই মিয়ানমার-বাংলাদেশে সাইবার যুদ্ধ শুরু হয়েছে। গত ১৫ মার্চ থেকে মিয়ানমারের হ্যাকাররা বাংলাদেশের সরকারি-বেসরকারি অন্তত ৫৫টি ওয়েবসাইট হ্যাক করে তাদের পতাকা ঝুলিয়ে দিয়েছে।

chardike-ad

এদিকে তাদের হামলার প্রতিবাদে মঙ্গলবার বাংলাদেশের সাইবার৭১, ডন্স টিম-ডিটিসহ অন্যান্য বাংলাদেশি হ্যাকার কমিউনিটি সম্মিলিতভাবে ‘OP Myanmar’-এর মাধ্যমে মিয়ানমার সাইবার স্পেসে পাল্টা আক্রমণ শুরু করেছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ প্রতিবেদন লেখার সময় মিয়ানমারের আইন, বাণিজ্য, জনসংযোগ মন্ত্রণালয়সহ ব্যাংকের বহু সাইট বাংলাদেশের হ্যাকাররা ডাউন করে দিয়েছে। এ হামলায় যারা বাংলাদেশ থেকে অংশ নিয়েছেন ভার্চুয়াল জগতে তাদের নাম হ্যাক্সর আহমেদ, ডন, সিরিও, দ্য বস।

বাংলাদেশি হ্যাকাররা সাইট হ্যাক করে লিখেছে, ‘অনেকদিন যাবৎ তোমাদের সাইবার স্পেস পরিদর্শন করা হয় না। মনে হচ্ছে, মিয়ানমারের ওয়েবসাইট প্রতিদিন কমে যাচ্ছে। আমাদের নিয়ে প্রোপাগান্ডা বন্ধ কর। তোমরা খেলা শুরু করেছ, আমরা শেষ করব। জয় বাংলা।’

দুই দেশের সাইবার স্পেস ঘেঁটে জানা গেছে, মিয়ানমার হ্যাকার গ্রুপ ইউজিএমএইচ গত কয়েকদিন ধরে বাংলাদেশের এসব ওয়েবসাইট হ্যাক করে বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশের হ্যাকার গ্রুপ নিয়ে উসকানিমূলক মন্তব্য করে যাচ্ছে।

বাংলাদশের হ্যাকাররা জানাচ্ছে, মিয়ানমারের সাইবার স্পেস বলতে তেমন কিছুই নেই। যে কয়টা সাইট আছে তার সবগুলোই প্রায় বাংলাদেশসহ অন্যান্য অনেক দেশেই ব্যান করে রেখেছে। এর বাইরেও যেসব ওয়েবসাইট রয়েছে সেখানে বাংলাদেশের হ্যাকাররা যৌথভাবে ধারাবাহিক আক্রমণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

মিয়ানমার সাইবার স্পেসে পাল্টা হামলাকারী বাংলাদেশ হ্যাকার এইচআর সোহাগ বলেন, আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। আমরা আরও সাইট ও সোশ্যাল মিডিয়া, তাদের ফেসবুক গ্রুপ, ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক ডিজেবল করে এর একটা বড় জবাব দেব।

মিয়ানমার সাইবার স্পেসে পাল্টা হামলাকারী বাংলাদেশ হ্যাকার এইচআর সোহাগ বলেন, মিয়ানমার হ্যাকাররা আমাদের দেশের বিভিন্ন দুর্বল সাইটগুলোতে আক্রমণ করেছে। তাই আমরা এটার ফলপ্রসূ জবাব দিতে মিয়ানমারের সরকারি-বেসরকারি ও জনপ্রিয় সকল ফেসবুক গ্রুপ, ফেসবুক পেজ ও ফেসবুক অ্যাকাউন্টে আক্রমণ চালিয়েছি। যার ফলাফল অনেকটাই বড় হবে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। আমরা আরও সাইট ও সোশ্যাল মিডিয়া, তাদের ফেসবুক গ্রুপ, ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক ও ডিজেবল করে এর একটা বড় জবাব দেব।

সৌজন্যে- যুগান্তর