Search
Close this search box.
Search
Close this search box.

দক্ষিণ কোরিয়ায় ৯০ সেকেন্ড আগে খাতা নেওয়ায় শিক্ষার্থীদের মামলা

korea-studentনির্ধারিত সময়ের ৯০ সেকেন্ড আগে পরীক্ষা শেষ করায় সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করছে দক্ষিণ কোরিয়ার একদল শিক্ষার্থী। পরীক্ষা পুনরায় দেওয়ার জন্য এক বছরের পড়াশোনার খরচ হিসেবে প্রত্যেকে শিক্ষার্থীকে ২ কোটি ওয়ান বা প্রায় সাড়ে ১৫ হাজার ডলার ক্ষতিপূরণ দেওয়া দাবি করেছে তারা। মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম রয়টার্স এই খবর জানিয়েছে।

chardike-ad

শিক্ষার্থীদের আইনজীবী বলেছেন, পরীক্ষাকেন্দ্রে এমন ভুল শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার বাকি অংশকেও মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করেছে। এমনকি কিছু পরীক্ষার্থী এতটাই ভেঙ্গে পড়েছিলেন যে পরীক্ষা শেষ না করেই তার কেন্দ্র থেকে বের হয়ে যান।

সুনেউং নামে পরিচিত কলেজ ভর্তি পরীক্ষা মূলত আট ঘন্টার একটি ম্যারাথন পরীক্ষা যেখানে একাধিক বিষয়ে ব্যাক-টু-ব্যাক পেপার রয়েছে।

বিশ্বের সবচেয়ে কঠিন পরীক্ষাগুলোর মধ্যে অন্যতম সুনেউং এবং এর প্রতিযোগিতাও অনেক বেশি। এ পরীক্ষা শুধু একজন শিক্ষার্থীর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি এবং ক্যারিয়ারই নির্ধারণ করে না বরং ভবিষ্যতে তার ব্যক্তিগত জীবনে সঙ্গী নির্বাচনেও বড় ধরণের ভূমিকা রাখে।

বার্ষিক এই পরীক্ষার সময় শিক্ষার্থীদের যথাসময়ে পরীক্ষায়কেন্দ্রে উপস্থিত হওয়া এবং পরীক্ষা চলাকালীন মনোযোগে যাতে ব্যাঘাত না ঘটে সেজন্য দেশটির আকাশসীমা বন্ধ রাখা এবং স্টক মার্কেট খোলায় দেরী করাসহ বেশ কয়েকটি ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

বিবিসি জানিয়েছে, মঙ্গলবার অন্তত ৩৯ জন শিক্ষার্থীর দায়ের করা মামলায় দাবি করা হয়েছে, এমন গুরুত্বপূর্ণ একটি পরীক্ষার সময় রাজধানী সিউলের একটি পরীক্ষাকেন্দ্রে প্রথম বিষয়েই সময়ের আগে ঘণ্টা বেজেছিল।

কিছু ছাত্র অবিলম্বে এর প্রতিবাদ করে। তবে তাদের কথায় কান না দিয়ে সুপারভাইজাররা খাতা নিয়ে যায়। তবে পরবর্তী বিষয়ের পরীক্ষা শুরু হওয়ার আগে অবশ্য ভুল স্বীকার করেছেন শিক্ষকরা। লাঞ্চ বিরতির সময় পরীক্ষার্থীদের অতিরিক্ত দেড় মিনিট সময়ও দেন। কিন্তু এতে তেমন কোনও লাভ হয়নি। তারা শুধু কাগজে ফাঁকা কলামগুলো পূরণ করতে পেরেছে। কোনও উত্তর পরিবর্তন করার অনুমতি তাদের দেওয়া হয়নি।

ইয়োনহাপ নিউজ এজেন্সির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, এ ঘটনায় তারা এতটাই বিরক্ত হয়েছেন যে পরীক্ষার বাকি অংশে শত চেষ্টা সত্ত্বেও কেউ মনোযোগ ধরে রাখতে পারেননি। তাদের মধ্যেকেউ কেউ আবার হাল ছেড়ে দিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।

শিক্ষার্থীদের আইনজীবী কিম উ-সুক স্থানীয় গণমাধ্যমকে বলেছেন, এমন ভুলের জন্য শিক্ষা কর্তৃপক্ষ ক্ষমা চাননি। পাবলিক ব্রডকাস্টার কেবিএস কর্মকর্তাদের বরাতে জানিয়েছে, নির্দিষ্ট পরীক্ষা কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা সুপারভাইজার সময়টি ভুল পড়েছেন।

দেশটিতে এমন ভুল এবারই প্রথম হয়েছে এমন নয়। এর আগেও খুব তাড়াতাড়ি ঘণ্টা বাজানোর জন্য শিক্ষার্থীরা মামলা করেছেন এমন ঘটনা ঘটেছে।

গত এপ্রিলে সিউলের একটি আদালত ২০২১ সালের সুনেউং পরীক্ষায় প্রায় দুই মিনিট আগে ঘণ্টা বাজানোর জন্য ছাত্রদের প্রত্যেককে ৭০ লাখ ওয়ান বা পাচ হাজার ২৫০ ডলার ক্ষতিপূরণে আদেশ দিয়েছিল।

তবে দেশ ভেদে এই ক্ষতিপূরণের মূল্য আরও বেশিও হতে পারে। ২০২১ সালে চীনের হুনান প্রদেশে এক ব্যক্তিকে আগে ঘণ্টা বাজানোর দায়ে এক বছরের জন্য বরখাস্ত করার শাস্তি প্রদান করা হয়েছিল। একটি স্কুলে জাতীয় কলেজের প্রবেশিকা পরীক্ষার সময় ওই ব্যক্তি চার মিনিট ৪৮ সেকেন্ড আগে ঘণ্টা বাজিয়েছিল।