sentbe-top

কোটি ছাড়াল এমআর পাসপোর্ট

passportবাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) ইস্যুর সংখ্যা ১ কোটি ছাড়িয়েছে।

এর মধ্যে দেশের ভেতরে ইস্যু করা হয়েছে প্রায় ৮৩ লাখ এমআর পাসপোর্ট। শুধু ঢাকা বিভাগেই ইস্যু করা হয়েছে ২৩ লাখ এমআর পাসপোর্ট। এ ছাড়া বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশিদের জন্য ১৭ লাখ এমআরপি ইস্যু করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার পাসপোর্ট অধিদপ্তর সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, বিদেশে প্রায় ৪০ লাখ বৈধ বাংলাদেশি নাগরিক রয়েছেন। এ ছাড়া অবৈধভাবে বিদেশে কতসংখ্যক বাংলাদেশি রয়েছেন তার কোনো সঠিক পরিসংখ্যান নেই। তবে ৪০ লাখ প্রবাসী বাংলাদেশির মধ্যে ১৭ লাখ বাংলাদেশিকে এমআর পাসপোর্ট দেওয়া সম্ভব হয়েছে।

চলতি বছরের মধ্যেই বাকিদের হাতে এমআর পাসপোর্ট তুলে দেওয়ার চেষ্টা চলছে। যদিও মালয়েশিয়া, সৌদি আরব, আরব আমিরাতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কর্মরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের হাতে এমআর পাসপোর্ট তুলে দেওয়ার লক্ষ্যে সরকার জরুরি কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। এজন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ঠিকাদার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এসব ঠিকাদার পুরোদমে অর্থাৎ দুই থেকে তিন শিফটে কাজ করলে এ বছরের মধ্যেই ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ প্রবাসী বাংলাদেশির হাতে এমআর পাসপোর্ট তুলে দেওয়া সম্ভব হবে।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের মধ্যে বিদেশে কর্মরত সব বাংলাদেশির হাতে এমআর পাসপোর্ট তুলে দিতে হবে। তা না পারলে বিদেশে কর্মরত এসব বাংলাদেশির সেখানে বৈধভাবে অবস্থান করা বা ভিসা নবায়ন করা কঠিন হয়ে পড়বে। কারণ, আগামী বছর থেকে হাতে লেখা পাসপোর্ট কোনো দেশে গ্রহণ করা হবে না।

পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এন এম জিয়াউল আলম ন জানান, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য প্রায় ৪০ শতাংশ এমআর পাসপোর্টের চাহিদা রয়েছে। আর দেশের ভেতরে ৬০ শতাংশ এমআরপির চাহিদা রয়েছে। প্রবাসী বাংলাদেশি সবার হাতে এ বছরের মধ্যেই এমআর পাসপোর্ট তুলে দেওয়ার লক্ষ্যে জোর চেষ্টা চলছে।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব খন্দকার ইফতেখার হায়দার  জানান, এ বছরের ২৪ নভেম্বরের মধ্যে বিদেশে কর্মরত সব বাংলাদেশির হাতে এমআর পাসপোর্ট তুলে দেওয়ার একটি সময়সীমা রয়েছে। এজন্য প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খোন্দকার মোশাররফ হোসেন সংশ্লিষ্টদের নিয়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

খন্দকার ইফতেখার হায়দার বলেন, ‘মন্ত্রীর নির্দেশে একটি টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে গঠিত একটি কমিটি টাস্কফোর্সের সদস্যদের নিয়ে প্রতি সপ্তাহে বৈঠক করছেন। আমরা প্রবাসী বাংলাদেশিদের সবার হাতে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এমআর পাসপোর্ট তুলে দিতে বর্তমান ঠিকাদার আইরিশ কোম্পানির সঙ্গে কথা বলব। তারা যদি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সবার হাতে এমআর পাসপোর্ট তুলে দিতে না পারে, তাহলে নতুন আরো ঠিকাদার কোম্পানিকে এমআরপি তৈরির কাজ দেওয়া হবে। তবে এ নতুন ঠিকাদার নিয়োগের বিষয়টি এখনো চূড়ান্ত হয়নি। তবে যে-করেই হোক নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আমরা সব প্রবাসী বাংলাদেশির হাতে এমআর পাসপোর্ট তুলে দেওয়া চেষ্টা করে যাচ্ছি।’

এদিকে পাসপোর্ট অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী প্রবাসী বাংলাদেশিদের হাতে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এমআর পাসপোর্ট তুলে দিতে সৌদি আরবের বিভিন্ন শহরের পাঁচটি কেন্দ্র থেকে, মালয়েশিয়ায় ১১ কেন্দ্র, যুক্তরাজ্যে তিন কেন্দ্র এবং যুক্তরাষ্ট্রের তিন কেন্দ্র থেকে বাংলাদেশিদের এমআর পাসপোর্ট দেওয়া হচ্ছে।

এ ছাড়া বিশ্বের অন্যান্য দেশে বাংলাদেশিদের সংখ্যা অনুপাতে এক বা একাধিক কেন্দ্র থেকে এমআরপি দেওয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে এ ধরনের কেন্দ্রের সংখ্যা আরো বাড়ানো হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।

sentbe-top