cosmetics-ad

মায়েরগর্ভে গুলিবিদ্ধ শিশুটির চিকিৎসায় ১০ ডাক্তার

child

মায়েরগর্ভে থাকা অবস্থায় মাগুরায় গুলিবিদ্ধ শিশুটির চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিক্যাল বোর্ড পুনর্বিন্যাস করে আরো দুই সদস্য বাড়ানো হয়েছে।

এর আগে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশুটির চিকিৎসার জন্য আট সদস্য বিশিষ্ট একটি মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছিল। আজ শনিবার ঢামেকের শিশু বিভাগের (এনআইসিইউ) প্রধান প্রফেসর আবিদ হোসেন মোল্লাকে প্রধান করে মেডিক্যাল বোর্ড পুনর্বিন্যাস এবং এই বোর্ডে আরো দুই সদস্য অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

এ বিষয়ে ঢামেকের শিশু সার্জারি বিভাগের প্রধান আশরাফুল হক কাজল জানান, এর আগে আট সদস্য বিশিষ্ট মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছিল। শনিবার সকালে এটিকে ১০ সদস্য বিশিষ্ট করা হয়েছে। শিশুটির শারীরিক অবস্থা বিষয়ে তিনি বলেন, ওর মায়ের বুকের দুধ সংগ্রহ করে খাওয়ানো হচ্ছে। শুক্রবার রাতে তিনঘণ্টা পর পর দুই মিলি করে ও শনিবার সকালে পাঁচ মিলি সংগ্রহ করে মায়ের বুকের দুধ খাওয়ানো হয়েছে শিশুটিকে।

আশরাফুল হক কাজল আরো বলেন, চক্ষু চিকিৎসকেরাও শিশুটিকে চিকিৎসা দিচ্ছেন। এক সপ্তাহের মধ্যেই শিশুটির চোখের রিপোর্ট পাওয়া যাবে। শিশুটির মা গাইনি, মেডিসিন, কার্ডিওলজি ও সার্জারি বিভাগের চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন। রোববার গুলিবিদ্ধ শিশু ও তার মায়ের জন্য একটি যৌথ মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হতে পারে বলেও জানান তিনি।

এ আগে ২৩ জুলাই মাগুরা শহরের দোয়ারপাড় এলাকায় যুবলীগের সমর্থক দুগ্রুপের মধ্যে হামলা পাল্টা হামলার সময় যুবলীগ কর্মী কামরুল ভূঁইয়ার বড় ভাইয়ের গর্ভবতী স্ত্রী নাজমা খাতুন ও চাচা মমিন ভূঁইয়া গুলিবিদ্ধ হন। তাদের মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ওইদিন রাতেই অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে মাতৃগর্ভে গুলিবিদ্ধ শিশুটির জন্ম হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য শিশু ও তার মাকে ঢাকায় আনা হয়।