sentbe-top

কাতারে প্রবাসী শ্রমিকদের ন্যূনতম মাসিক মজুরি ২০০ ডলার নির্ধারণ

qatar-workersবিশ্বের অন্যতম ধনী দেশ কাতার প্রবাসী শ্রমিকদের জন্য ন্যূনতম মাসিক মজুরি ২০০ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করেছে। গত বৃহস্পতিবার কাতারের শ্রমমন্ত্রী ইসা আল নুয়াইমি এ ঘোষণা দিয়েছেন বলে জানায় এএফপি। তবে শ্রম অধিকার রক্ষার সংগঠনগুলো বলছে, এই বেতনে একজন শ্রমিকের পক্ষে কাতারের মতো দেশে বাস করা সম্ভব না।

নুয়াইমি জানান, অস্থায়ীভাবে প্রতি মাসে ন্যূনতম মজুরি ৭৫০ রিয়াল (১৯৫ ডলার) এখন থেকেই কার্যকর হবে। তবে খুব শিগগিরিই এর একটি স্থায়ী হার ঠিক করা হবে। নতুন বেতনের পাশাপাশি শ্রমিকরা বিনামূল্যে বাসস্থান, খাবার ও স্বাস্থ্যসেবা পাবেন, যেগুলোর খরচ নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠান বহন করবেন বলে তিনি জানান।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারের মোট জনসংখ্যা প্রায় ২৬ লাখ। তেলসমৃদ্ধ দেশটির প্রায় ৮৮ শতাংশ মানুষ অভিবাসী, যাদের বেশির ভাগই শ্রমিক। এই প্রথমবারের মতো শ্রমিকদের জন্য ন্যূনতম মজুরির বিধান রাখতে যাচ্ছে দেশটির সরকার ।

উপসাগরীয় অঞ্চলের শ্রম অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন ইকুইডেম রিসার্স এর গবেষক মুস্তফা কাদরি বলেন, এই বেতন খুবই কম। একজন মানুষ এই অর্থ কাতারের মতো একটা দেশে অর্ধেক মাসও চলতে পারবে না।

তিনি বলেন, শ্রমিকদের এমন একটা বেতন দিতে হবে যেন তারা সেখানে খেয়ে-পরে কিছু রাখতে পারে আর মাস শেষে কিছু পয়সা জমাতে পারে।

উল্লেখ, ২০২২ সালে ফুটবল বিশ্বকাপের আয়োজন করছে কাতার। সে উপলক্ষ্যে দেশটিতে চলছে মহা নির্মাণযজ্ঞ। তবে অভিযোগ রয়েছে এই কাজে যুক্ত শ্রমিকদের সঙ্গে কৃতদাসের মতো আচরণ করছে কাতার। এ কাজ কাজ করতে গিয়ে অন্তত ১২০০ কর্মী নিহত হন বলে ২০১৩ সালে এক প্রতিবেদনে দাবি করেছিলো আইটিউইসি।

এদিকে গত অক্টোবর মাসে সর্বনিম্ন বেতন নির্ধারণ ও কাফিল পরিবর্তনের বিষয়ে নতুন নীতিমালা জারির ঘোষণা দেয়। তখন বলা হয় ২৬ অক্টোবর থেকে ৯ নভেম্বর পর্যন্ত কাতার ও আইএলও কর্মকর্তারা দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন।

সেই টানা বৈঠকে সিদ্ধান্ত আসে সর্বনিম্ন বেতন নির্ধারণ, চাকরি পরিবর্তন করতে না পারার শর্ত, কাতারের শ্রম অধিদপ্তরের অনুমতি নিয়ে একজন শ্রমিক কাফিল বা স্পন্সর পরিবর্তন করতে পারবেন, সবগুলো চুক্তিপত্র একটি কর্তৃপক্ষের নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণে থাকবে, কর্মীরা কর্মস্থলে নিজেদের কমিটি গড়তে পারবেন।

sentbe-top