cosmetics-ad

গোপনে গাঁজা রাখা ও সেবনের বৈধতা দিল দক্ষিণ আফ্রিকা

south-africa

গোপনে প্রাপ্তবয়স্কদের গাঁজা রাখা ও সেবনের অনুমতি দিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাংবিধানিক আদালত। এছাড়া আদালতের সব বিচারকের সম্মতিতে ব্যক্তিগত খরচে গাঁজা উৎপাদন করার বৈধতা দেয়া হয়েছে।

গাঁজা সেবনের দায়ে তিন দক্ষিণ আফ্রিকান বিচারের মুখোমুখি হন। এই মামলা চলাকালে তারা আদালতকে বলেন, গাঁজা সেবনে নিষেধাজ্ঞা ‘অন্যায়ভাবে আমাদের ব্যক্তিগত পরিমণ্ডলে অনুপ্রবেশ করছে’।

মামলাটির রায়ে ডেপুটি চিফ জাস্টিস রেমন্ড জোন্ডো বলেন, একজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি নিজ খরচে গাঁজা রাখা বা সেবনের দায়ে অপরাধী বলে বিবেচিত হবে না। দেশটির পার্লামেন্টকে আদেশটি আইন এবং তা বাস্তবায়ন করতে ২৪ মাস সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে। রায় শোনার পর ‘গাঁজা সেবনে আর বাধা নেই’ স্লোগানে আনন্দ-উল্লাসে মেতে ওঠে দেশটির গাজা সেবনকারীরা।

দক্ষিণ আফ্রিকার গাঁজা উন্নয়ন কাউন্সিল এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছে। এছাড়া মাদকদ্রব্যসহ গ্রেপ্তার করা ব্যক্তিদের অভিযোগ তুলে নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে এই কাউন্সিল।

sentbe-adদেশটিতে গাঁজা সেবনের পক্ষে প্রচারণা চালানো ‘ডাগ্গা পার্টি’র নেতা জেরেমি অ্যাক্টন বলেন, এই রায়ে প্রকাশ্যে গাঁজা বহনের বৈধতা দেয়া উচিত ছিল। দক্ষিণ আফ্রিকায় ‘ডাগ্গা’ নামে পরিচিত গাঁজা।

এদিকে দেশটির সরকার ‘মাদকদ্রব্য স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর’ যুক্তি দেখিয়ে এই রায়ের বিরোধিতা করেছে।অবশ্য, একজন কী পরিমাণ গাঁজা রাখতে বা সেবন করতে পারবে তা নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি এই আদেশে। এছাড়া প্রকাশ্যে গাঁজা সরবরাহ, বিক্রি ও সেবন করা অবশ্যই অবৈধ বলে বিবেচিত হবে।

এর আগে গত এপ্রিলে লেসোথোর পর আফ্রিকার দ্বিতীয় দেশ হিসেবে চিকিৎসার জন্য গাজা ব্যবহার বৈধ ঘোষণা করে জিম্বাবুয়ে। মঙ্গলবার (১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮) যুক্তরাজ্যের গণমাধ্যম বিবিসি’তে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এসব কথা বলা হয়।