টুইটারে ট্রাম্পের আক্ষেপ : আমি একা, আমার কেউ নেই

trumpগোটা বিশ্ব যখন বড়দিনের উৎসবে ভাসছে তখন নিজেকে একাকী বোধ করছেন বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর দেশের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মার্কিন সরকার আংশিক অচলসহ নানা সংকটের মুখে থাকা ট্রাম্প এবার নিজের একাকিত্বের বেদনার কথা জানালেন।

মঙ্গলবার ট্রাম্প তার টুইটার অ্যাকাউন্টে লিখেছেন, ‘আমি নিঃসঙ্গ (দুর্ভাগা), একাকী বসে আছি হোয়াইট হাউসে। ডেমোক্র্যাটদের ফিরে আসার অপেক্ষা করছি এবং তাদের সঙ্গে একটা আলোচনা করার জন্য উন্মুখ হয়ে আছি। কেননা আমাদের অতি প্রয়োজনীয় সীমান্ত সুরক্ষা চুক্তি নিয়ে কথা বলতে হবে তাদের সঙ্গে।’

ট্রাম্পের এই টুইট নিঃসন্দেহে মার্কিন প্রশাসন ও মার্কিন প্রেসিডেন্টের বর্তমান সম্পর্কের মতই অর্থবহ। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প হয়তো ২০১৮ সালটাকে ভুলে যেতে চাইবেন। মার্কিন প্রশাসনের ক্ষমতার চূড়ায় থাকার পরেও এ বছরে ট্রাম্পের এমন একটা দিক নেই, যা তাকে কিছুটা হলেও স্বস্তি দিতে পারে।

ট্রাম্পের এই হতাশার টুইট সামনে আসার পর বিশ্বের বিভিন্ন গণমাধ্যমের পক্ষ থেকে হোয়াইট হাউসের প্রতিনিধিদের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু হোয়াইট হাউসের কোনো প্রতিনিধির কাছ থেকে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

ট্রাম্পের একগুঁয়েমির জন্য বড়দিনের আগে থেকেই মার্কিন সরকারি দফতরগুলোর অধিকাংশই বন্ধ। চরম বিপদের মুখে আট লাখ মার্কিন কর্মচারী। দেশটির পররাষ্ট্র, বাণিজ্য, হোমল্যান্ড সিকিওরিটি, বিচারবিভাগ ও কৃষি দফতরগুলোর অনেক কর্মীকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, এখন তাদের বেতন দেয়া সম্ভব নয়। ছুটিতে যেতে বলা হয়েছে নাসার মতো গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের কর্মীদেরকেও।

ট্রাম্পের দাবি, মেক্সিকো সীমান্তে ৫০০ কোটি ডলার দিয়ে বানাতে হবে অত্যাধুনিক প্রাচীর। এই পরিমাণ বরাদ্দ দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে ট্রাম্পের বিরোধীরা। আর সে কারণেই এখনো সরকারি বাজেট পাস হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে চরম আর্থিক সংকটে পড়েছে মার্কিন প্রশাসন।

যদিও নিজের একগুঁয়েমি থেকে এখনো সরে আসেননি ট্রাম্প। মঙ্গলবার আরেকটি টুইটে তিনি বলেন, ‘ডেমোক্র্যাটরা ভণ্ড। আর গণমাধ্যমগুলোও শুধু গল্প বানাচ্ছে। সিনেটররা পররাষ্ট্র নীতি বোঝে না। প্রতিরক্ষামন্ত্রী জিম ম্যাটিসও কিছুই বোঝেন না।’

কোথাও থেকে কোনো আশার আলো না পেয়ে গত তিনদিন ধরে হোয়াইট হাউসে বসে বসে একের পর এক টুইট করে চলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। গত তিনদিনে ৩৫টি টুইট করেছেন তিনি। শুধু গত সোমবারই করেছেন দশটি টুইট। আর সমস্ত টুইটেই ফুটে উঠছে ক্রোধ, হতাশা আর একাকিত্ব।