cosmetics-ad

হোম কোয়ারেন্টিন না মেনে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে বিয়ের চেষ্টা প্রবাসীর

marriage
প্রতীকী ছবি

হোম কোয়ারেন্টিন না মেনে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে বিয়ের চেষ্টা করেছেন সৌদি আরব থেকে ফিরে আসা মো. শাকিল (২৫) নামের এক যুবক। তবে তার বিয়ে পণ্ড করে দিয়েছে প্রশাসন। পুলিশের উপস্থিতি বুঝতে পেরে বিয়ে না করেই পালিয়ে যায় বরপক্ষ।  গত শুক্রবার রাত ১০টায় চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে। বরপক্ষ পালিয়ে গেলেও ছাত্রীটির বাবার কাছ থেকে মুচলেকা আদায় করা হয়।

জানা গেছে, উপজেলার পশ্চিম আঁচলছিলা গ্রামের বাসিন্দা মো. শাকিল দীর্ঘ দিন ধরে সৌদি আরবে ছিলেন। সেখানে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকলে গত ১২ মার্চ বাড়িতে চলে আসেন তিনি। আসার পর তাকে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টিন দেয় উপজেলা প্রশাসন। কিন্তু তিনি হোম কোয়ারেন্টিন না মেনে বেপরোয়াভাবে যত্রতত্র ঘুরে বেড়াতে থাকেন।

গত শুক্রবার রাত ১০টায় শাকিল তার পাশের গ্রামের অষ্টম শ্রেণি পড়ুয়া এক ছাত্রীকে বিয়ে করার জন্য আত্মীয়-স্বজনদের নিয়ে ওই ছাত্রীর বাড়িতে যান। আপ্যায়ন শেষে সেখানে চলছিল বিয়ের প্রস্তুতি। সে সময় অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তির কাছ থেকে ফোন পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফাহমিদা হক বিয়েটি বন্ধ করা এবং ওই ব্যক্তিকে ধরার জন্য মতলব দক্ষিণ থানা পুলিশকে নির্দেশ দেন।

ইউএনও’র নির্দেশনা পেয়ে মতলব দক্ষিণ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার আইচ তার থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. মহিউদ্দিনের নেতৃত্বে পুলিশের কয়েকজন সদস্য ছাত্রীটির বাড়িতে পাঠান। পুলিশের উপস্থিতিতে বিয়ের আয়োজন পণ্ড হয়ে যায় এবং শাকিল ও তার স্বজনেরা এ সময় দ্রুত পাশের ভুট্টা খেত দিয়ে পালিয়ে যান।

ওসি স্বপন কুমার আইচ বলেন, ‘বাল্যবিবাহের অভিযোগে ছাত্রীটির পিতাকে আটক করা হয়। পরে সাবালিকা হওয়ার আগে মেয়েকে আর বিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করবেন না মর্মে মুচলেকা আদায় করা হয় মেয়েটির পিতার কাছ থেকে। এরপর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। ’