cosmetics-ad

কালোবাজারে ৭০ বস্তা সরকারি চাল বিক্রি করে দিলেন ছাত্রলীগ নেতা

rice-theif

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা উপজেলায় ১৮৬ বস্তা সরকারি চাল উদ্ধারের ২৪ ঘণ্টা না যেতেই এবার দীঘিনালা উপজেলায় কালোবাজারে বিক্রি হওয়া খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ৭০ বস্তা চাল উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে মাটিরাঙ্গা ও দীঘিনালা থেকে ২৫৬ বস্তা সরকারি চাল উদ্ধার করা হলো।

সোমবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে দীঘিনালা উপজেলার মেরুং বাজার থেকে ৭০ বস্তা সরকারি চাল উদ্ধার করেন দীঘিনালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ উল্ল্যাহ। এ সময় অবৈধভাবে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল কেনার অপরাধে মো. দেলোয়ার হোসেন দুলু নামে একজনকে আটক করে পুলিশ। এ ঘটনার পর থেকে পলাতক চালের ডিলার মেরুং ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জহির উদ্দিন।

rice-theifস্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় নিযুক্ত ডিলার মো. জহির উদ্দিন ১০ টাকা মূল্যের চাল নির্ধারিত কার্ডধারীদের মাঝে বিতরণ না করে তা কালোবাজারে বিক্রি করে দেন। বিষয়টি গোপন সূত্রে জানতে পেরে মেরুং বাজারে অভিযান চালান দীঘিনালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ উল্ল্যাহ। এ সময় একটি গুদাম থেকে ৭০ বস্তা সরকারি চাল উদ্ধার করা হয়। যার পরিমাণ প্রায় ২১০০ কেজি।

মেরং বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি কেএম ইসমাইল হোসেন বলেন, সোমবার দুপুরে ইউএনও এসে মেরুং বাজারের একটি বন্ধ গুদাম খুলে ৭০ বস্তা সরকারি চাল উদ্ধার করেন। এ সময় অবৈধভাবে সরকারি চাল কেনার অপরাধে মো. দেলোয়ার হোসেন দুলুকে আটক করা হয়। তবে চালের ডিলার মো. জহির উদ্দিন পলাতক।

দীঘিনালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ উল্ল্যাহ বলেন, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় নিযুক্ত ডিলার মো. জহির উদ্দিন ১০ টাকা মূল্যের চাল বিতরণ না করে কালোবাজারে বিক্রি করে দেন। এমন তথ্যের ভিত্তিতে মেরুং বাজারে অভিযান চালিয়ে ৭০ বস্তা সরকারি চাল উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।