sentbe-top

ইপিএসের সমস্যার সমাধান ইপিএস কর্মীদের হাতেই

eps‘আমাদের সমস্যা আমাদেরকেই সমাধান করতে হবে’ শ্লোগান নিয়ে আয়োজিত ইপিএস সংলাপে আলোচকরা বলেছেন ইপিএসের সমস্যা সমাধান ইপিএস কর্মীদের হাতেই। আজ দক্ষিণ কোরিয়ার আনসানে ইপিএস স্পোর্টস এন্ড ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন আয়োজিত সংলাপে বক্তারা বলেন “ইপিএস কর্মীরা নিজেরাই নিজেদের সমস্যাগুলো সমাধান করতে পারেন। ঘন ঘন চাকরি পরিবর্তন বন্ধ করা, কোম্পানীগুলোতে সুনামের সাথে চাকরি করা, নিজেদের কোম্পানীতে আরো বাংলাদেশীকে আনার ব্যাপারে সহযোগিতা করাসহ কিছু উদ্যাগ নিলে এবং সে অনুযায়ী কাজ করলে খুব কম সময়ের মধ্যে ইপিএসে আরো বেশি সংখ্যক বাংলাদেশী কোরিয়ায় আসবে”।

সংলাপে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিউলস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত জুলফিকার রহমান বলেন কোরিয়ান সরকার বাংলাদেশকে যে কোটা দিয়েছে আমরা সেটা পূরণ করতে পারিনা। এর কারণ কোম্পানীর মালিকদের অনাগ্রহ। ঘন ঘন কাজ পরিবর্তনসহ বাংলাদেশী কর্মীদের বেশ কিছু সমস্যার কারণে অনেক মালিক বাংলাদেশীদেরকে নিতে চান না। যদি আমরা আরো বেশি বাংলাদেশী কোরিয়াতে নিয়ে আসতে চাইলে ইপিএস কর্মীদের সহযোগিতা দরকার। ইপিএস কর্মীদের এমনভাবে কাজ করতে হবে যেন কোম্পানীর মালিকেরা কর্মীর দরকার হলে বাংলাদেশী কর্মী নিয়ে আসে। আগের চেয়ে এখন সচেতনতা বেড়েছে, অনেক পরিবর্তন এসেছে। তিনি বলেন বর্তমান যে কোটা আছে তা পূরণ হলে আমরা কোটা বাড়ানোর জন্য কোরিয়ান সরকারকে আহবান করতে পারব। তিনি সংলাপের আয়োজকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন ইপিএস কর্মীদের নিয়ে এই ধরণের সংলাপ এবং আলোচনা আরো বেশি বেশি হওয়া দরকার।

ইপিএস স্পোর্টস এন্ড ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের সংগঠক শফিক ইসলামের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিসিকে সাধারণ সম্পাদক এম এন ইসলাম, বিসিকে নির্বাহী সদস্য ও ব্যবসায়ী এম জামান সজল, হাবিল উদ্দিন, ছোটন আহমেদ, ডঃ মনোয়ার হোসাইন, মনির হোসাইন, মিজানুর রহমান, শিমুল হাসান এক্সেল, মোহাম্মদ আল আমিন, ফরিদ আলম,  কে এম আসাদুজ্জামান আসাদ, শান্ত শেখ, জুয়েল আহমেদ, ফেরদৌস টিটু, ইমরান হোসাইন, শাহিন সিদ্দিকীসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ।

সংলাপের দ্বিতীয় পর্বে ইপিএস এর দুটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়। ইপিএসের অতীত, বর্তমান, ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনা করেন বাংলা টেলিগ্রাফ সম্পাদক সরওয়ার কামাল এবং ইপিএস ভিসা থেকে ই-৭ভিসা, এফ ২ ভিসা (রেসিডেন্স ভিসা), স্টুডেন্ট ভিসায় কিভাবে পরিবর্তন করা যায় তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন আসাদুজ্জামান আসাদ।

অনুষ্ঠানের সর্বশেষ পর্ব প্যানেল আলোচকদের কাছে প্রশ্নোত্তর পর্বে ইজাজ আহমেদের পরিচালনায় দর্শকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন রাষ্ট্রদূত জুলফিকার হাসান, দুতাবাসের  প্রথম সচিব জাহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া, বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন কোরিয়ার সভাপতি আবুবকর সিদ্দিক রানা, বাংলা টেলিগ্রাফ সম্পাদক সরওয়ার কামাল, ইসো সংগঠক জিয়াউল হক এবং এইচ আর ডি কোরিয়া প্রতিনিধি মোহাম্মদ আলমগীর।

সংলাপটিতে সহযোগিতা করেছে কোরিয়া প্রবাসীদের সমন্বিত সংগঠন বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন কোরিয়া (বিসিকে)। মিডিয়া পার্টনার হিসেবে ছিল বাংলাভিশন,বাংলা টেলিগ্রাফ এবং আল কোরিয়া।

 

 

sentbe-top