cosmetics-ad

ইহুদী ধর্ম গ্রহণ করে ইসরায়েলে বাংলাদেশি তরুণ!

বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য ইসরায়েল ভ্রমণ নিষিদ্ধ। স্বাধীন ফিলিস্তিনের পক্ষে থাকা বাংলাদেশের পাসপোর্ট ব্যবহার করে কেউ ইসরায়েলে যেতে পারে না। আর এই কাজ যদি কেউ করে তবে শাস্তির আওতায় আনার বিধান রয়েছে। কিন্তু রাষ্ট্রীয় এই নিষেধাজ্ঞা অমাণ্য করে ইসরায়েল ভ্রমণে গিয়েছেন বাংলাদেশের এক তরুণ।

ড. শাদমান জামান (২৫) নামের ওই তরুণ গত বুধবার থেকে তেলআবিবে অবস্থান করছেন। এবারই প্রথম নয়, গত ফেব্রুয়ারিতে তিনি প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ইসরায়েল ভ্রমণ করেন। আর শুধু তাই নয়, শাদমান এর আগে ইহুদী ধর্মে দীক্ষাও নিয়েছেন।

বাংলাদেশের তরুন শাদমান লেখাপড়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছিলেন। সেখান তেকে বুধবার ‘ব্রিটেন ‘ইহুদীবাদী সংঘ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের হয়ে তিনি ইসরায়েল সফরে যান।

ইসরায়েলের সংবাদমাধ্যম জেরুজালেম পোস্টের সাক্ষাৎকারে শাদমান নিজের দৃষিটকোণ থেকে বাংলাদেশের সামাজিক ও ধর্মীয় প্রতিকূলতার কথা তুলে ধরে বলেন, ‘মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে তীব্র ইহুদি-বিদ্বেষ কাজ করে। এমনকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাঠ্যক্রমেও ইহুদিদের সম্পর্কে নেতিবাচক কথা বলা হয়।’

সবচেয়ে ইহুদি-বিদ্বেষী দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম বলে উল্লেখ করে শাদমান জানান, তার বর্তমান বাসস্থান ব্রিটেনও ইহুদি ও ইসরায়েলবিরোধী। কিন্তু ইহুদীদের সাতে পরিচিত হয়ে তার খুবই ভালো লেগেছে।

ইসলামের সঙ্গে ইহুদি ধর্মের অনেক মিল রয়েছে উল্লেখ করে শাদমান বলেন, ‘ইসলামের অনেক প্রথাই ইহুদি ধর্ম থেকে এসেছে।’

জেরুজালেম পোস্টকে শাদমান জানান, তার দাদাও ইহুদি ধর্ম গ্রহণ করেন এবং বাংলাদেশে তিনিই প্রথম ইহুদিদের পক্ষে কথা বলেন। শাদমানের দাদা তাকে বলেছেন, ‘বাঙালিদের আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণে যেমন বাংলাদেশ সৃষ্টি হয়েছে, তেমনি ইহুদিদের জন্য ইসরায়েল সৃষ্টি হয়েছে।’

শাদমান জানান, ১২ বছর বয়সেই ইহুদিবাদের দিকে ঝুঁকে পড়েন তিনি। আর এই বিষয়ে তিনি পরিবারের কাছ থেকেও পূর্ণ সমর্থন পান। বিভিন্ন সময়ে তার দাদা দেশের বাইরে থেকে ইহুদিবাদ-সংক্রান্ত বিভিন্ন বই নিয়ে আসতেন।

এ সময় শাদমান অভিযোগ করে বলেন, ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতার যুদ্ধের সময় ইসরায়েল আমাদের পূর্ণ সমর্থন করেছিল। কিন্তু আমাদের ইতিহাসে তার উল্লেখ নেই। আরবের কাছ থেকে বিভিন্ন সহায়তা পাওয়ার আশায় বাংলাদেশ কখনো ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দেয়নি।’

ইহুদিবাদকে সমর্থনের কারণে বিভিন্ন সময়ে প্রাণনাশের হুমকি পেয়েছেন বলে জানান শাদমান। এ কারণেই নিরাপত্তার জন্য তিনি গত বছরে যুক্তরাজ্যে চলে যান।

শাদমান জানান, তার লক্ষ্য বাংলাদেশ ও ইসরায়েলের মধ্যকার সম্পর্কন্নোয়ন করা কিন্তু ইসরায়েল ভ্রমণের পর বাংলাদেশে প্রবেশে তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে বলেও জানান এই তরুণ।