cosmetics-ad

এবার অ্যাপে অর্ডার করলেই মিলবে গাঁজা

cannabis

যারা গাঁজা সেবন করেন তাদের জন্য সুখবরই বটে। কেননা গাঁজার জোগান পেতে হলে এখন আর তাদেরকে যেতে হবে না কারও দুয়ারে। বাড়িতে বসে অ্যাপে অর্ডার করলেই পৌঁছে যাবে গাঁজা। এখন যেভাবে চলাচলের জন্য গাড়ি মোটরসাইকেল কিংবা ট্যাক্সি খোঁজা যায় সহজেই, ঠিক তেমনি গাঁজা পাওয়া যাবে। আর এই সুবিধা পাচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসের বাসিন্দারা।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এমন তথ্যই জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, এখন থেকে লস অ্যাঞ্জেলসের বাসিন্দারা খুব সহজেই তাদের পছন্দের পণ্যটি কিনতে পারবেন। আর এজন্য মোবাইলে ডাউনলোড করতে হবে একটি অ্যাপ। অ্যাপে গিয়ে পরিমাণমতো পছন্দ করে তার অর্ডার করলেই পৌঁছে যাবে বাড়িতে।

গাঁজা বিক্রির অভিনব এই পদ্ধতি চালু করেছে ‘ইজ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কিছু অঙ্গরাজ্যে স্বল্প পরিমাণে গাঁজা বিক্রির বৈধতা দেয়া হয়েছে। আগে শুধু চিকিৎসার জন্য গাঁজা সেবন বৈধ করা হলেও এখন আমোদ কিংবা নিজের মনকে সতেজ রাখার জন্যও অল্প পরিমাণে গাঁজা সেবনের বৈধতা দেয়া হয়েছে দেশটিতে।

এমন বৈধতার পর গাঁজা সেবন করতে যারা ভালোবাসেন তাদের জন্য এই সুবিধা নিয়ে এসেছে ‘ইজ’ নামের ওই প্রতিষ্ঠান। গত বছরের জানুয়ারিতে বিভিন্ন রাজ্যে গাঁজা সেবনের বৈধতা দেয়া হলে প্রায় আশি শতাংশ ক্রেতা বেড়ে গেছে দেশটিতে। আর এমন চাহিদার কথা মাথায় রেখে গাঁজা ক্রয়ের সুবিধার্থে এমন পন্থা অবলম্বন করলো ওই স্টার্ট আপ কোম্পানি।

এর আগেও ২০১৪ সালে ‘ইজ’ তাদের অ্যাপের মাধ্যমে গাঁজা বিক্রি শুরু করে। তবে তা ছিল খুব সীমিত আকারে। আর তখন একটু সীমাবদ্ধতা ছিল। কেউ যদি গাঁজা কিনতে চাইতো তাহলে তাকে দেখাতে হতো চিকিৎসকের সনদপত্র। অর্থাৎ চিকিৎসক লিখিতভাবে সুপারিশ করলেই কেবল গাঁজা বিক্রি করা যেত।

কিন্তু আইন পরিবর্তনের কারণে এখন আমোদপ্রমোদের জন্যও গাঁজা সেবন করা যাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের ১০টি অঙ্গরাজ্যে গাঁজাসেবন এখন বৈধ। তাছাড়াও দেশটির ৫০টি অঙ্গরাজ্যের মধ্যে ৩৩টিতেই চিকিৎসার ক্ষেত্রে গাঁজা সেবনকে বৈধতা দেয়া হয়েছে।

ইজ-এর পরিচালক শিনা শিরাভি বলেন, ‘মানুষ এখন তাদের অবসর সময়ে বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে সময় কাটানোর জন্য গাঁজা সেবন করতে চায়। আর এই গাঁজা জোগাড় করতে গিয়ে যে সময় ব্যয় হয় সেটা তারা দিতে চায় না। তাই কেউ তাদেরকে বাড়ি গিয়ে গাঁজা পৌঁছে দিলে সুবিধা হয় তাদের। ক্রেতাদের এমন ভাবনা ও চাহিদার প্রেক্ষিতেই এমন উদ্যোগ নিয়েছি আমরা।’

সৌজন্যে- জাগো নিউজ