cosmetics-ad

যুক্তরাষ্ট্রে ৬ মাসে ১৬৬৮ বাংলাদেশী গ্রেফতার

uk-arrest

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশের মানব পাচার নিয়ে বিশ্ব জুড়ে যখন আলোচনা তুঙ্গে, এসময় যুক্তরাষ্ট্রেও আলোচনায় স্থান করে নিয়েছে বাংলাদেশী যুবকরা। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে অবৈধ প্রবেশের দায়ে গত ৬ মাসে ১ হাজার ৬৬৮ বাংলাদেশী গ্রেফতার হয়েছেন। এসব যুবকের বয়স ২২ থেকে ৩২ বছরের মধ্যে।

রাজনৈতিক কারণে তাদের জীবন বিপন্ন হওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমাতে বাধ্য হয়েছেন – এ যুক্তি দেখিয়ে তারা স্থায়ীভাবে বসবাসের আবেদন করেছেন। দালালকে ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা করে দিয়ে ভারত, ব্রাজিল, গুয়াতেমালা, মেক্সিকো, বলিভিয়া, পানামা সিটি হয়ে দুর্গম সীমান্ত পথে পাড়ি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের সময় তারা আটক হয়।

ওদিকে রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়া কঠিন হয়ে দাড়িয়েছে বাংলাদেশীদের। ক্ষমতাসীন মহাজোটের কর্মী-সংগঠকরাও জামায়াতে ইসলামী অথবা বিএনপির সমর্থক বলে যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করছেন।

এ ঘটনা বিরূপ প্রভাব ফেলেছে এ দেশের ইমিগ্রেশন বিভাগের উপর। রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিতদের স্বজনেরাও রাজনৈতিক কারণে নিগৃহিত হবার নথিপত্র সাবমিট করেছেন রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনার আবেদনে। সাম্প্রতিক সময়ে এ ধরনের ঘটনা বাড়ার কারনে ইমিগ্রেশন বিভাগের কর্মকর্তা এবং কোর্টের বিচারকরাও সহজে কারোর আবেদন মঞ্জুর করছেন না।

এসাইলাম প্রার্থনার আবেদনপত্র প্রস্তুত, সাবমিট এবং পরবর্তীতে ইন্টারভিউর সময়ে অনুবাদক হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী এবং ইমিগ্রেশন কোর্টে বাংলাদেশীদের পক্ষাবলম্বনকারী এটর্নীগণের কাছে থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

তারা জানান, কয়েক মাস আগেও বাংলাদেশের সাংবাদিকদের আবেদন খুব দ্রুত মঞ্জুর হলেও এখন পরিস্থিতি পাল্টেছে বলেও জানা গেছে।