cosmetics-ad

দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

submarine

অবশেষে বহুল প্রতীক্ষিত দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ সকাল সাড়ে ১০টার দিকে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে কুয়াকাটায় অবস্থিত দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলের (সি-মি-উই-৫) উদ্বোধনের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী।

নতুন এই সাবমেরিন ক্যাবলে সংযুক্ত হওয়ায় বাংলাদেশ নতুন করে ১ হাজার ৫০০ গিগাবাইটের (জিবি) বেশি ব্যান্ডউইডথ পাবে। তবে আজ থেকে পেতে শুরু করবে ২০০ জিবিপিএস (গিগাবাইট পার সেকেন্ড) ব্যান্ডউইথ।

এ সময় আরও কয়েকটি প্রকল্পের উদ্বোধন ঘোষণা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি কুয়াকাটায় অবস্থিত দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলের বা সি-মি-উই-৫ এর শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করছি।

এর আগে চলতি বছরের ৩১ জুলাই একবার এই ক্যাবলের উদ্বোধনের তারিখ দেওয়া হয়েছিল। তার আগে মার্চের দ্বিতীয় সপ্তাহে ক্যাবলটি উদ্বোধনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

তবে রাষ্ট্রায়ত্ব কোম্পানি বিটিসিএল সঞ্চালন লাইনের কাজ ঠিকমতো শেষ করতে না পারায় এতদিনের এই বিলম্ব। অথচ দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল প্রকল্পের কাজ শেষ করার জন্য ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত সময় নির্ধারণ করা হয়েছিল।

এ বিষয়ে বিএসসিসিএল) এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মনোয়ার হোসেন কয়েকদিন আগে জানান, উদ্বোধনের দিন থেকেই ২০০ জিবিপিএস (গিগাবাইট পার সেকেন্ড) ব্যান্ডউইথ পাব। পর্যায়ক্রমে তা ১ হাজার ৫০০ জিবিপিএসে উন্নীত হবে।

এর আগে, গত ২১ ফ্রেব্রুয়ারি তুরস্কের ইস্তাম্বুলে এই কনসোর্টিয়ামের উদ্বোধন হয়। গত ১৬ জানুয়ারি হাওয়াইয়ের হনুলুলুতে ২০ হাজার কিলোমিটার দীর্ঘ এবং ২৪ টেরাবাইট পার সেকেন্ড (টিবি/এস) গতির এই সি-মি-উই-৫ প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়। এই কনসোর্টিয়ামে যুক্ত রয়েছে বাংলাদেশসহ ১৭টি দেশ এবং এই ক্যাবলের মোট ল্যান্ডিং পয়েন্ট রয়েছে ১৮টি।

উল্লেখ,সি-মি-উই-৫ হল দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া-মিডল ইস্ট-ওয়েস্টার্ন ইউরোপ-৫-এর সংক্ষিপ্ত রূপ। এই কনসোর্টিয়ামে রয়েছে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড, মিয়ানমার, বাংলাদেশ, ভারত, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ওমান, জিবুতি, ইয়েমেন, সৌদি আরব, মিসর, ইতালি ও ফ্রান্স।