cosmetics-ad

উত্তর কোরিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞার তালিকায় যুক্ত হল আরও ৩২ পণ্য

kim

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ উত্তর কোরিয়ার ওপর আরোপ করা নিষেধাজ্ঞার পরিধি আরও বাড়িয়েছে। সামরিক ও বেসামরিক কাজে ব্যবহৃত হয় এমন ৩২ ধরনের জিনিসের উপর নতুন এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। জাতিসংঘ বলছে, উক্ত পণ্য ও প্রযুক্তি সামগ্রী উত্তর কোরিয়ার কাছে বিক্রি ও স্থানান্তর নিষিদ্ধ হিসেবে গণ্য হবে।

বার্তা সংস্থা এপি’র খবরে বলা হয়, নিরাপত্তা পরিষদের নিষেধাজ্ঞা নিরীক্ষণ কমিটির সোমবারের এক প্রজ্ঞাপণে বলা হয়, তেজস্ক্রিয় পদার্থ, ফ্ল্যাশ এক্সরে মেশিন, ভূ-কম্পন নিরীক্ষণ যন্ত্র এ নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকবে। গত ১১ সেপ্টেম্বর দেশটির পারমাণবিক ও ব্যালিস্টিক ক্ষেপনাস্ত্রের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ।

নিষেধাজ্ঞার তালিকায় রয়েছে, গতিশীল কণা, নিউট্রন গণনার জন্য সফটওয়্যার, ঘনীভূত আকারের নাইট্রিক এসিড, বিকিরণ সনাক্ত, পরিমাপ এবং বিকিরণ ঘনীভূত টেলিভিশন ক্যামেরা।

১১ সেপ্টেম্বরের ওই নিষেধাজ্ঞার প্রেক্ষাপটে উত্তর কোরিয়ায় সব ধরনের তরল ও ঘনীভূত গ্যাসের আমদানি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র পিয়ংইয়ং এর অপরিশোধিত তেলের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে চাইলেও কমিটি গত ১২ মাসের আমদানির উপর তা বহাল রাখে। ওই কমিটি দেশটিতে পরিশোধিত পেট্রোলিয়াম তেলের আমদানির সীমা নির্ধারণ করে দেয় বছরে ২ মিলিয়ন ব্যারেল । ওই নিষেধাজ্ঞায় উত্তর কোরিয়ার টেক্সটাইল পণ্য ও অন্যান্য দেশকে এর নাগরিকদের ওয়ার্ক পারমিটের দিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত রবার্ট উড জাতিসংঘের সাধারণ সভার অস্ত্র নিরস্ত্রীকরণ কমিটিকে জানায়, আমেরিকার সব মিত্রদের নিয়ে উত্তর কোরিয়ার উপর সর্বোচ্চ অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক চাপ প্রয়োগ করা হবে। এর মাধ্যমে দেশটির নেতা কিম জং উনকে অস্ত্র নিরস্ত্রীকরণে আলোচনার টেবিলে বসতে বাধ্য করা হবে।

উত্তর কোরিয়ার ক্রমাগত হুমকির মুখে যুক্তরাষ্ট্র তার মিত্র দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে বলেও জানান তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি দলের সদস্য রাসেল হিগস সোমবার নিষেধাজ্ঞা কমিটিকে জানায়, উত্তর কোরিয়া গত ২৫ বছরে পারমাণবিক অস্ত্র সংক্রান্ত সকল চুক্তি লঙ্ঘন করেছে।