cosmetics-ad

জিনপিংকে কিমের অভিনন্দন

kim

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংকে অভিনন্দন জানিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন। অন্য দেশের নেতাদের অভিনন্দন জানানো কিমের জন্য একটি বিরল ঘটনা। খবর রয়টার্সের

বৃহস্পতিবার উত্তর কোরিয়ার গণমাধ্যমে জানানো হয়েছে, দ্বিতীয়বারের মতো চীনের কমিউনিস্ট পার্টির প্রধান হিসেবে নির্বাচিত হওয়ায় বুধবার তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন কিম। চীনের জনগণের প্রধান হিসেবে ভবিষ্যতে যেন শি জিনপিং সর্বোচ্চ সফলতা অর্জন করেন সেই শুভ কামনা জানিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা।

গত কয়েক দশকের মধ্যে নিজের শক্তিশালী অবস্থানের মাধ্যমে সমাজতান্ত্রিক চীনের প্রতিষ্ঠাতা মাও সেতুংয়ের কাতারে পৌঁছে গেছেন জিনপিং। ফলে সংবিধানে জিনপিংয়ের নাম এবং তার মতবাদও অন্তর্ভূক্ত হয়েছে।

ব্যক্তিগতভাবে কাউকে শুভেচ্ছা বার্তা পাঠাতে দেখা যায় না। বিশেষ করে সম্প্রতি উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র এবং পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষার কারণে বিশ্বজুড়ে যে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে তার লাগাম টানতে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আহ্বান জানিয়েছে চীন। এর পরও চীনের নেতাকে অভিনন্দন জানালেন কিম।

উত্তর কোরিয়ার কেন্দ্রীয় সংবাদ সংস্থা এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, শি জিনপিংয়ের উদ্দেশে কিম বলেছেন, তাদের দৃঢ় বিশ্বাস এই যে, দুই দেশের জনগণের আগ্রহে দুই দল এবং দুই দেশ উন্নতি লাভ করবে।

জিনপিংকে কিম আরো বলেছেন, শি জিনপিংয়ের নেতৃত্বে নতুন যুগে প্রবেশ করেছে চীনের জনগণ। চীন তাদের সবচেয়ে শক্তিশালী নেতার নাম ঘোষণার এক দিন পরেই উত্তর কোরিয়ার তরফ থেকে এই চিঠি অভিনন্দনপত্র পাঠানো হলো।উত্তর কোরিয়ার একমাত্র মিত্র দেশ চীন। দু’দেশের মধ্যে প্রায় ৯০ শতাংশ বাণিজ্য রয়েছে।

চাইনিজ কমিউনিস্ট পার্টির (সিসিপি) ১৯তম বার্ষিক কংগ্রেসে নির্বাচিত হওয়ার পর শি জিনপিং জাতির উদ্দেশে বলেন, আমরা একটি মহান যুগে বাস করছি। আমরা এখন আরো অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী, গর্বিত। আমাদের ওপর অনেক দায়িত্ব রয়েছে।’

শি জিনপিংসহ চীনের পলিটব্যুরো স্ট্যান্ডিং কমিটির (পিএসসি) সাত গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নাম ঘোষণা করা হয়। এরা হলেন, শি জিনপিং, লি কেকিয়াং, লি ঝানশু, ওয়াং ইয়াং, ওয়াং হুনিং, ঝাও লেজি এবং হ্যান ঝেং।