sentbe-top

কঠোর অবস্থানে মালয়েশিয়া, অবৈধদের দেশে ফেরার শেষ সুযোগ ৩০ আগষ্ট

malaysia-dettainকঠোর থেকে আরো কঠোর অবস্থানে মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন বিভাগ ও সরকার। বৈধ কাগজপত্র ছাড়া মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত শ্রমিকদের চলতি মাসের ৩১ তারিখের মধ্যেই স্বদেশে ফিরে যেতে হবে। এই সময়ের পর বিধি লঙ্ঘনকারী কেউ গ্রেফতার হলে তার সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার রিঙ্গিত জরিমানাসহ পাঁচ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। এরপর বৈধ কাগজপত্র ছাড়া অবৈধ অভিবাসীদের চিরুনি অভিযানের মুখে পড়তে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে দেশটির অভিবাসন বিভাগ।

(৩+১) মালয়েশিয়ায় এই প্রকল্পটি হলো স্বেচ্ছায় আইনের হাতে সমর্পণের ব্যবস্থা। বৈধ কাগজপত্র ছাড়া মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত শ্রমিকদের ২০১৮ সালের ৩০  আগস্টের মধ্যে দেশে ফিরে যেতে হবে।

নিবন্ধনের সময় আবেদনকারীদের পাসপোর্টে সর্বোচ্চ ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা থাকতে পারে। আবেদনকারীরা এই সময় কোনো রকম হয়রানি ছাড়া নিজ দেশে ফিরে যেতে পারবেন। এ সময় কেউ কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করলে জরিমানা বাবদ ৩০০ রিঙ্গিত এবং ট্রাভেল ফি হিসেবে ১০০ রিঙ্গিত দিতে হবে।

এদিকে, যেখানে সেখানে গড়ে ওঠা কিছু দালাল অফিস ট্রাভেল পারমিট করে দেয়ার নাম করে শ্রমিকদের হাজার হাজার রিঙ্গিত হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে করে ট্রাভেল পাস পেতে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন শ্রমিকরা।বৈধ কাগজপত্র ছাড়া মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত শ্রমিকদের চলতি মাসের ৩১ তারিখের মধ্যেই স্বদেশে ফিরে যেতে হবে। এই সময়ের পর বিধি লঙ্ঘনকারী কেউ গ্রেফতার হলে তার সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার রিঙ্গিত জরিমানাসহ পাঁচ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। এরপর বৈধ কাগজপত্র ছাড়া অবৈধ অভিবাসীদের চিরুনি অভিযানের মুখে পড়তে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে দেশটির অভিবাসন বিভাগ।

sentbe-ad(৩+১) মালয়েশিয়ায় এই প্রকল্পটি হলো স্বেচ্ছায় আইনের হাতে সমর্পণের ব্যবস্থা। বৈধ কাগজপত্র ছাড়া মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত শ্রমিকদের ২০১৮ সালের ৩১ আগস্টের মধ্যে দেশে ফিরে যেতে হবে। প্রকল্পের নিয়ম অনুযায়ী, স্বদেশে ফিরে যাওয়ার জন্যে যারা নিবন্ধন করবেন, তাদের সঙ্গে পরবর্তী ৭ দিনের মধ্যে ফিরে যাওয়ার বিমান টিকেট থাকতে হবে।

নিবন্ধনের সময় আবেদনকারীদের পাসপোর্টে সর্বোচ্চ ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা থাকতে পারে। আবেদনকারীরা এই সময় কোনো রকম হয়রানি ছাড়া নিজ দেশে ফিরে যেতে পারবেন। এ সময় কেউ কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করলে জরিমানা বাবদ ৩০০ রিঙ্গিত এবং ট্রাভেল ফি হিসেবে ১০০ রিঙ্গিত দিতে হবে।

আগামী ৩০ আগস্টের মধ্যে আত্মসমর্পণ (৩+১) এর আওতায় যদি অবৈধ শ্রমিকরা দেশত্যাগ না করে তাহলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। শুধু অবৈধই নয় বরং আমরা তাদের নিয়োগ দাতাদের ও গ্রেফতার করবো। অবৈধ শ্রমিক এবং নিয়োগ দাতাদের সঙ্গে কোনো আপস করব না।

মোস্তাফার আলী বলেন, এ দিকে ২০১৭ সাল থেকে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত বিভিন্ন দেশের শ্রমিকরা (৩+১) এর আওতায় ১ লাখ ৩ হাজার ৫শ’ ৭৪ জন দেশে ফিরে গেছেন। সবাই আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে অবৈধ শ্রমিক এবং নিয়োগ দাতাদের ৩০ আগস্ট পর্যন্ত সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে এবং যার যার দূতাবাস থেকে ট্রাভেল পাস ইস্যু করে দেশে ফেরত যেতে বলা হয়েছে। যদি এই নির্দেশ মানতে অভিবাসী শ্রমিক ব্যর্থ হয় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেয়া হবে এবং এব্যাপারে কোন প্রকার আপস করা হবে না।

সৌজন্যে- প্রবাসীর দিগন্ত

sentbe-top