sentbe-top

কোরিয়ায় অবৈধ অভিবাসীদের ভাগ্যে কি আছে?

‘মাঝে মাঝে মন চায় সব ছেড়ে চলে যাই। কিন্তু ছেলে মেয়ের কথা মনে হলে কষ্ট চেপে  এখানে পড়ে থাকি। ভিসা না থাকায় বেশি মানুষের সাথে যোগাযোগও নাই। সারাদিন কাজ করি, বাসায় এসে রান্না করে খাই আর ঘুমাই। এই আমার জীবন’।

কোরিয়া প্রবাসী হাসান (ছদ্মনাম)। ২০১০ সালে কোরিয়াতে এসেছিলেন। সর্বশেষ ২০১৩ সালে বাংলাদেশে গিয়েছিলেন। কোরিয়ান সরকারের নিয়মানুযায়ী নির্ধারিত সময় ৪ বছর ১০ মাস পরে ফিরে যাওয়ার কথা হাসানের। কিন্তু ফিরে যেতে পারেন নি ছেলে মেয়ে এবং পরিবারের কথা ভেবে।

‘আমার বাড়িতে কিছু কৃষি জমি আছে। বাড়ি করার জন্য একটা জমি কিনেছি। সেখানে বাড়ী তৈরীর কাজ শুরু করেছি। বছরখানেক লাগবে কাজ শেষ করতে। তখন দেশে চলে যাবো। আমার মেয়েটার জন্য খুব কষ্ট হয়। সিক্সে পড়ুয়া আমার মেয়েটা প্রায় আমাকে চলে যেতে বলে। ছেলেটাও আগামী বছর এসএসসি পরীক্ষা দিবে। আমার কি এখানে পড়ে থাকতে মন চায়? মাঝে মাঝে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে যাই। তখন মনে হয় এখনই দেশে চলে যাই।’

হাসানের মত হাজার হাজার প্রবাসী কোরিয়াতে ভিসা ছাড়া বসবাস করছেন। চলতি বছরের জুলাই মাসে প্রকাশিত ইমিগ্রেশনের তথ্য অনুযায়ী ৩ লাখ ৩০ হাজার বিদেশী ভিসা ছাড়া কোরিয়ায় বসবাস করছেন। যার মধ্যে কতজন বাংলাদেশী আছেন তার তথ্য না থাকলেও সংখ্যাটা ৪ হাজারের কম নয়। ২০১৮ সালে কোরিয়ায় ভিসা ছাড়া বসবাসরত বিদেশীর সংখ্যা ছিল প্রায় ২ লাখ ৯ হাজার। যার মধ্যে বাংলাদেশী ছিলেন ৪ হাজার ৩০৯ জন।

ভিসা নাই, দেশে যাওয়ার সুযোগও নাই

ভিসা না থাকায় দেশে যাওয়ার সুযোগও নেই। দেশে গেলে ফেরত আসার সুযোগ নেই। ১০/১৫ বছর ধরে বাংলাদেশে না গিয়ে পরিবার পরিজন থেকে দূরে থেকে প্রবাস জীবনে পড়ে আছেন এমন প্রবাসীর সংখ্যাও অনেক।

কেন দেশে যাচ্ছেন না? এমন প্রশ্নের উত্তরে ভিসা বিহীনভাবে থাকা এক প্রবাসীর উত্তর ‘দেশে গিয়ে কি করবো? ব্যবসা করে একটা নির্দিষ্ট আয়ের ব্যবস্থা থাকলেও চলে যেতাম।’ আরেকজন প্রবাসীর মন্তব্য পরিবারের কথা ভেবেই প্রবাসে পড়ে থাকি। দেশে গিয়ে একটা ভাল ব্যবসা দাড় করানো পর্যন্ত থাকতে চাই। 

বৈধ হওয়ার কি কোন সুযোগ আছে?

মানবাধিকার সংগঠনগুলো অনেক সময় দাবি তুললেও কোরিয়ান সরকার কখনোই তাতে সায় দেয়নি। বেকারত্বের হার নিয়ে সবসময় চাপের মধ্যে থাকা সরকারগুলোর প্রতি জনগণের চাপ থাকে ভিসাবিহীনদেরকে নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর ব্যাপারে।

বৈধ হওয়ার কোন সুযোগ নেই এবং ভিসাবিহীনদের ব্যাপারে আরো কঠোর হওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোরিয়া ইমিগ্রেশন। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে মে মাস পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে প্রায় ৮ হাজার ৩শ ভিসাবিহীন বিদেশীকে ধরে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠিয়েছে। ২০১৭ সালে প্রায় ১৩ হাজার বিদেশীকে ফেরত পাঠিয়েছিলো। 

সম্প্রতি আইন মন্ত্রণালয় ভিসাবিহীন ধরতে পুলিশের সংখ্যা বাড়ানোর চিন্তা করছে বলে জানিয়েছে।  বর্তমানে পুরো কোরিয়াতে ১৮৪ জন পুলিশ কর্মকর্তা ভিসাবিহীনদের গ্রেফতারের কাজে নিয়োজিত আছে।

তাছাড়া বিদেশী কর্মীদের নিয়ে নানামুখী চাপে আছে সরকার। গত জুলাইয়ে ন্যুনতম মজুরী বাড়ানোর সিদ্ধান্তের পর কঠোর সমালোচনার মুখে পড়ে মুন জে ইন। বিদেশীদের কোটা কমানো, বিদেশী কর্মীদের জন্য আলাদা বেতন স্কেল এবং অবৈধদেরকে নিজ দেশে ফেরত পাঠানোসহ নানামুখী চাপের মুখে আছে কোরিয়ান সরকার। 

sentbe-top