cosmetics-ad

আ.লীগ বন্দুকের সাহায্যে ক্ষমতায় থাকতে চায় : ফখরুল

fakhrul

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের হামলা করে, মামলা দিয়ে বিজয় ছিনিয়ে নিতে চায় আওয়ামী লীগ। জনগণের আস্থা হারিয়ে তারা রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়েছে। তাই রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে বন্দুকের সাহায্যে ক্ষমতায় থাকতে চায়। বুধবার রাতে নগরীর মডার্ন মোড়ে রংপুর-৩ আসনের ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী রিটা রহমানের নির্বাচনী প্রচারণার অংশ হিসেবে আয়োজিত পথসভায় তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের দুঃশাসনে দেশ শশ্মানে পরিণত হয়েছে। দেশের মানুষ আজ শান্তিতে ঘুমাতে পারছে না। যুবকরা পালিয়ে বেড়াচ্ছে। সাদা পোশাকে অনেককে তুলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। বিভিন্ন জায়গায় মানুষের মৃতদেহ পড়ে থাকছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, জাতি বিরাট সংকটে পড়েছে। হাজার হাজার মানুষকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গত ১০ বছরে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের নামে ৯৮ হাজার মামলা করা হয়েছে। এতে ২৫ লাখ মানুষকে আসামি করা হয়েছে। আর তফসিল ঘোষণার পর চার হাজার মামলা দিয়ে বিরোধী দলকে দমন করার চেষ্টা করেছে সরকার।

তিনি আরও বলেন, সরকার ও ইসি যোগসাজশ করে ঐক্যফ্রন্টের অর্ধশত প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করেছে। এখন প্রার্থী ও নেতাকর্মীদের রক্তাক্ত করা হচ্ছে। এমতাবস্থায় জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলে দেশবাসীকে স্বৈরাচারের হাত থেকে রক্ষার চেষ্টা করছেন জাতীয় নেতৃবৃন্দ।

মির্জা ফখরুল আরও বলেন, দুই কোটি টাকার মিথ্যা মামলা দিয়ে বেগম জিয়াকে কারারুদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু আওয়ামী লীগের নেতারা হাজার কোটি টাকা লুটপাট করে সম্পদের পাহাড় গড়লেও তাদের কিছু হচ্ছে না। শুধু খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তার প্রতি ভয় পেয়ে তাকে নির্বাচন থেকে বিরত রাখতে সাজানো মামলায় তাকে পরিত্যক্ত কারাগারে রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, বেগম জিয়ার নির্দেশে দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে ঐক্যফ্রন্ট গঠন করা হয়েছে। এ নির্বাচন গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনার একটি কর্মসূচি। তাই যত নির্যাতনই আসুক না কেন ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনের মাঠ ছাড়বে না। তাই ৩০ ডিসেম্বর ধানের শীষে ভোট দেয়ার মাধ্যমে দেশবাসীকে নিজেদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। অন্যথায় দেশ দীর্ঘকালের জন্য স্বৈরাচার আর একনায়কের অধীনে চলে যাবে। যারা গণতন্ত্রের জন্য জীবন দিয়েছে তাদের ঋণ শোধ করতে, বেগম জিয়াকে মুক্ত করতে ও স্বৈরাচার সরকারের কবল থেকে মুক্তি পেতে ৩০ ডিসেম্বর ভোটকেন্দ্র পাহারা দিতে হবে।

পরে উপস্থিত নেতাকর্মীদের সঙ্গে রংপুর-৩ আসনের ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী রিটা রহমানের পরিচয় করিয়ে দেন তিনি। রংপুর মহানগর বিএনপির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিজুর পরিচালনায় পথসভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-প্রচার সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহিন ফারহানা ও রংপুর-৩ (সদর) আসনের বিএনপির প্রার্থী রিটা রহমান।