Search
Close this search box.
Search
Close this search box.

বিশ্বকে পথ দেখাতে দক্ষিণ কোরিয়াকে অনুরোধ ডব্লিউএইচও’র

moon-whoকরোনাযুদ্ধ জয়ের দক্ষিণ কোরিয়ার কৌশল বা জাদুতে আগাতে চায় বিশ্ব। বিশ্বকে করোনামুক্ত করতে সেই পথ দেখাতে অনুরোধ জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-ডব্লিউএইচও। সোমবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক টেড্রোস অ্যাধনম দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন যে ইনের সাথে ফোন আলাপচারিতায় এই অনুরোধ জানিয়েছেন।

chardike-ad

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন যে ইনের সাথে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক টেড্রোস অ্যাধনমের ফোন আলাপ। তিনি করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী লড়াইয়ে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য দক্ষিণ কোরিয়া প্রেসিডেন্টকে আহবান জানিয়ে বাকি দেশগুলি জন্য কি কি পদক্ষেপ অনুসরণ করা যায় তার কর্মপরিকল্পনা প্রদান অনুরোধ রাখেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক বলেন, ব্যাপক আক্রমণাত্মক পরীক্ষা, রোগনির্ণয় এবং সনাক্তকরণের সাথে জড়িত দক্ষিণ কোরিয়ার “ব্যাপক কৌশল” কার্যকরভাবে কাজ করেছে।

তিনি মুনকে অনুরোধ করেন, বিশ্ব নেতাদের দক্ষিণ কোরিয়ার পদ্ধতি থেকে শিখতে উৎসাহিত করার প্রচেষ্টা করা উচিত।

ডব্লিউ এইচ নেতা “একটি বিশেষ পরামর্শ” করেছিলেন মুন জে ইনের কাছে আফ্রিকান দেশগুলিকে টেস্ট কিট এবং অন্যান্য চিকিত্সা ডিভাইস সরবরাহ করার বিষয়ে যেন গভীর মনোযোগ দেয়।

তিনি ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত বিশ্ব স্বাস্থ্য সমাবেশে মূল বক্তা হিসেবে মুনকে আমন্ত্রণ জানান। বলেন,”এটি COVID-19 এর সাথে দক্ষিণ কোরিয়ার অভিজ্ঞতা ভাগ করে নেওয়ার একটি ভাল সুযোগ হিসাবে কাজ করবে।”

যারা এইকনফারেন্স আয়োজনের পরিকল্পনা করছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মের্কেল এবং দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্টসিরিল রামাফোসা।

প্রেসিডেন্ট মুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী কং কিউং-ওয়াসহ কূটনীতিক চ্যানেলের মাধ্যমে এ নিয়ে পরামর্শের প্রস্তাব করেন। তারপরে তিনি সংস্থাটির প্রাসঙ্গিক নির্দেশিকাগুলির ভিত্তিতে দক্ষিণ কোরিয়ার ব্যবস্থাগুলির বিষয়ে ডব্লিউএইচও কর্মকর্তাকে স্মরণ করিয়ে দেন।

নিরপেক্ষতা, স্বচ্ছতা এবং গণতন্ত্রের তিনটি প্রধান নীতি অনুসরণ করে ক্রমাগত COVID-19 এর মোকাবেলা করছে। ” তিনি আরও জানান তাঁর প্রশাসনের পরিকল্পনা একমাত্র ডব্লিউইচও নয়, জাতিসংঘের দ্বারা পরিচালিত করোনভাইরাস প্রতিক্রিয়া কর্মসূচিতে অবদান রাখার পরিকল্পনা রয়েছে। ডব্লিউএইচও ১ এপ্রিল পর্যন্ত সম্পর্কিত তহবিলের মোট ৬৭৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার জোগাড় করেছে।

মুন জানিয়েছেন, মহামারী নিয়ে প্রায় ২০ বিদেশি রাষ্ট্রপ্রধানের সাথে তার ইতিমধ্যে ফোনালাপ হয়েছে। তিনি দেশগুলির জন্য সকল মেডিকেল উপকরণ সহায়তা প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, “অভূতপূর্ব বৈশ্বিক স্বাস্থ্যসেবা সঙ্কট” এর মধ্যে ডব্লিউএইচও-এর ভূমিকা আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে এবং এই ভাইরাসকে পরাস্ত করতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে বলে প্রত্যাশা রাখেন।