Search
Close this search box.
Search
Close this search box.

পূর্বাচলের বিদ্যুৎ মাটির নিচে নিতে দক্ষিণ কোরিয়া দেবে ৬ হাজার কোটি

chardike-ad

ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার বাসস্থানের নিমিত্তে ১৯৯৫ সালে ঢাকার সম্প্রসারণে নেওয়া হয় ‘পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্প’। রাজধানী শহরের পাশে সব ধরনের আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসহ স্বয়ংসম্পূর্ণ নতুন শহর করাই সরকারের মূল লক্ষ্য। এই শহরের বৈদ্যুতিক লাইন মাটির নিচে নিতে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্বে (পিপিপি) ৭০ কোটি ডলার বিনিয়োগের ঘোষণা দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া।

বুধবার (২ মার্চ) দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে পিপিপি কর্তৃপক্ষের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) সচিব সুলতানা আফরোজের নেতৃত্বে চতুর্থ বাংলাদেশ-কোরিয়া যৌথ পিপিপি প্ল্যাটফর্ম সভা অনুষ্ঠিত হয়। এই সভায় দক্ষিণ কোরিয়া পূর্বাচল নতুন শহরের জন্য ৭০ কোটি ডলার বিনিয়োগ ঘোষণা করে। প্রতি ডলার সমান ৮৫ টাকা ধরে বাংলাদেশি মুদ্রায় বিনিয়োগের পরিমাণ ৫ হাজার ৯৫০ কোটি টাকা।

বাংলাদেশের পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন সুলতানা আফরোজ। এ সময় রাজউক চেয়ারম্যান এবিএম আমিনুল্লাহ নূরী, ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের (ডেসকো) ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. কাউসার আমীর আলী, বিদ্যুৎ বিভাগের যুগ্ম সচিব মো. নাজমুল আবেদীন, পিপিপি’র মহাপরিচালক মো. আবুল বাশার উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস।

দক্ষিণ কোরিয়া সরকারের ভূমি, অবকাঠামো ও পরিবহন মন্ত্রণালয়ের ভাইস মিনিস্টার সিওন অন উনসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

দক্ষিণ কোরিয়া থেকে টেলিফোনে পিপিপি কর্তৃপক্ষের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) সচিব সুলতানা আফরোজ জাগো নিউজকে বলেন, আজকে আমাদের জন্য একটা ভালো দিন। পূর্বাচল নিউ টাউনের সমস্ত বৈদ্যুতিক লাইন মাটির নিচে নিতে ৭০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে দক্ষিণ কোরিয়া। পিপিপি’র মাধ্যমে কোরিয়ান কোম্পানি এই বিনিয়োগ করবে। প্রধানমন্ত্রী স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করছেন। স্বপ্ন বাস্তবায়নে অংশীদার হতে চায় পিপিপি।

পূর্বাচলে ৬ হাজার ২৭৭ দশমিক ৩৬ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জ অংশে রয়েছে ৪ হাজার ৫৭৭ দশমিক ৩৬ একর এবং গাজীপুর অংশে ১৫০০ একর জমি যা ৩০টি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে। বাকি ১৫০ একর জমি ঢাকা জেলার খিলক্ষেত থানায় কুড়িল ফ্লাইওভার এবং লিংক রোড নির্মাণে ব্যবহার করা হয়েছে। প্রকল্পটিতে বিভিন্ন আকারের মোট ২৭ হাজার ১৭১টি প্লট এবং ৬২ হাজার অ্যাপার্টমেন্টের সুযোগ রয়েছে।

সূত্রঃ জাগোনিউজ।