cosmetics-ad

ল্যাপটপের বাতিল ব্যাটারি থেকে জ্বলবে আলো

light
ভারতের বেঙ্গালুরুর রাস্তার পাশের একটি দোকানে জ্বলছে এলইডি বাতি। ল্যাপটপের ফেলে দেওয়া ব্যাটারিই এই আলোর উৎস

ল্যাপটপের ব্যাটারি পুরোনো হয়ে গেলেও একেবারে ফেলনা নয়। কারণ, আলোর জোগান দেওয়ার উপযোগী যথেষ্ট পরিমাণ শক্তি অবশিষ্ট রয়ে যায় এসব পরিত্যক্ত ব্যাটারিতে। মার্কিন প্রযুক্তিপ্রতিষ্ঠান আইবিএমের এক গবেষণায় এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গবেষকেরা জানান, পরিত্যক্ত প্রতিটি ব্যাটারিতে যে পরিমাণ শক্তি অবশিষ্ট থাকে, তা ব্যবহার করে একটি এলইডি বাতি দিনে অন্তত চার ঘণ্টা করে এক বছর পর্যন্ত জ্বালানো যায়। ল্যাপটপের ফেলে দেওয়া ব্যাটারির ৭০ শতাংশই এ ধরনের এলইডি বাতি জ্বালানোর কাজে ব্যবহার করার সুযোগ রয়েছে। আর এতে খরচও পড়বে প্রচলিত বাতির চেয়ে অনেক কম। পাশাপাশি বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির বর্জ্য অপসারণ নিয়ে যে সমস্যা রয়েছে, তার সমাধানও হবে।

ল্যাপটপের পুরোনো ব্যাটারি দিয়ে এলইডি বাতি জ্বালানোর প্রক্রিয়াটি ভারতের বেঙ্গালুরু শহরে চলতি বছর পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করে দেখা হয়েছে। দরিদ্র বস্তিবাসী এবং রাস্তার ফেরিওয়ালাদের কাছে এ ধরনের বাতি জনপ্রিয়তা পাবে বলে আশা করা হচ্ছে। কারণ, ভ্রাম্যমাণ এসব ব্যবসায়ী বিদ্যুতের লাইন থেকে সংযোগ নেওয়ার সুবিধা পান না।

আইবিএমের অধীনে ভারতীয় একদল গবেষক ওই সাশ্রয়ী এলইডি বাতির কার্যকারিতা নিয়ে গবেষণা চালান। বিষয়টি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (এমআইটি) বিশেষজ্ঞরা ক্যালিফোর্নিয়ার সান হোসে শহরে অনুষ্ঠেয় এক সম্মেলনে আলোচনা করবেন।

আইবিএমের দলটি ল্যাপটপের পুরোনো লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি থেকে এলইডি আলো জ্বালানোর যন্ত্রটির নাম দিয়েছেন ইয়োরজার। এটি বাতির মতো স্বল্প ক্ষমতার ডিসি যন্ত্র চালাতে পারে। ওই গবেষকদের লক্ষ্য ভারতে বিদ্যুৎ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত প্রায় ৪০ কোটি মানুষের মধ্যে আলো ছড়িয়ে দেওয়া। এই বিপুল জনসংখ্যার জন্য বর্তমানে সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহারের প্রচলন শুরু হলেও তা বেশ ব্যয়বহুল এবং কৌশলগত কারণে কখনো কখনো অসুবিধাজনক।

এক একটি ইয়োরজার কমপক্ষে এক বছর ব্যবহার করে আলো পাওয়া যাবে। প্রথম দফায় বিপুল পরিমাণে উৎপাদিত প্রতিটি যন্ত্রের দাম পড়বে মাত্র ৬০০ ভারতীয় রুপি। গবেষকেরা বলেন, জ্বালানির সংকট দূর করার পাশাপাশি বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির আবর্জনার সদ্ব্যবহারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে ইয়োরজার। পরীক্ষামূলক ব্যবহারে বাতিটির ব্যাপারে ইতিবাচক ফল পাওয়া গেছে। যন্ত্রটির উন্নয়নের জন্য যে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, তার মধ্যে ইঁদুরে কাটতে পারে না—এমন তার ব্যবহার করার ব্যাপারটি গুরুত্বপূর্ণ।

উন্নয়নশীল দেশগুলোতে বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অনেক ঘাটতি রয়েছে। পশ্চিমা দেশগুলোতে প্রয়োজন ফুরিয়ে যন্ত্রপাতির ব্যবহার উন্নয়নশীল দেশগুলোতে বেশি দেখা যায়। আইবিএমের গবেষণায় বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিদিন গড়ে এক লাখ ৪২ হাজার কম্পিউটার ফেলে দেওয়া হয়। বছরে এই সংখ্যা প্রায় পাঁচ কোটিতে পৌঁছায়।

আইবিএমের উদ্যোগে ইয়োরজার প্রযুক্তি ব্যবহারের বিষয়টিকে স্বাগত জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক দাতব্য প্রতিষ্ঠান কম্পিউটার এইড। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কিথ সনেট বলেন, ফেলে দেওয়া যন্ত্রপাতি প্রক্রিয়াজাত করে পুনর্ব্যবহার করার চেয়ে সরাসরি পুনর্ব্যবহারের ব্যাপারটা চমৎকার। তবে পরিবেশের যাতে ক্ষতি না হয়, সে ব্যাপারে খেয়াল রাখা জরুরি। সূত্র: বিবিসি ও এমআইটি টেকনোলজি রিভিউ।