sentbe-top

স্মার্টফোন আরও স্মার্ট করবেন যেভাবে

smartphone

প্রযুক্তি পাল্টে দিচ্ছে দুনিয়া, আবার প্রযুক্তি নিজেও পাল্টে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। এ পাল্টানোর পরিক্রমা আরও বেগবান করেছে স্মার্টফোন।

শুধু বর্তমানের প্রাসঙ্গিকতা নয়, এই আধুনিক যন্ত্রের ভবিষ্যত সম্ভাবনাও ইতোমধ্যেই প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করেছে আমাদের জীবনে।

এর ছোঁয়ায় পরশ পাথরের মতো পাল্টে যাচ্ছে আমাদের চারপাশের দৃশ্যপট। শুধু যোগোযোগ অনুষঙ্গ হিসেবে নয়, অন্যান্য ক্ষেত্রেও আধিপত্য বিস্তারের মাধ্যমে স্মার্টফোন হয়ে উঠেছে মানুষের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সঙ্গী।

এককথায়, স্মার্টফোনের অমিত সম্ভাবনা এখন প্রশ্নাতীত। নিজেকে আরও বুদ্ধিমান করে তুলতে এ প্রযুক্তি কাজে লাগানোর কয়েকটি উপায় উপস্থাপন করা হল-

 

ক্যামেরার চোখে

সেলফি, উইফি, স্ন্যাপশট ছাড়াও স্মার্টফোনের ক্যামেরা ব্যবহার করা যায় অণুবীক্ষণ যন্ত্র হিসেবে। বিশ্বাস না হয় ক্যামেরার লেন্সের সামনে আরেকটি ম্যাগফাইনিং গ্লাস লাগিয়ে আবিষ্কার করুন নিজের চারপাশ।

 

সেন্সরের সাতকাহন

স্মার্টফোনের বিভিন্ন সুবিধার মূলে রয়েছে এর সাথে সংযুক্ত সেন্সরগুলো। অ্যাপসের মাধ্যমে এ সেন্সরগুলোকে আবার নানা কাজে ব্যবহার করা যায়, যেমন- আলোর তীব্রতা পরিমাপে লাইট সেন্সর, পুশ আপ গুণতে প্রক্সিমিটি সেন্সর, অবস্থান জানতে জিপিএস রিসিভার, দিক জানতে গাইরোস্কোপ, আবহাওয়া পরিস্থিত বুঝতে ব্যারোমিটার, ভূমিকম্পের সতর্কতা পেতে অ্যাক্সিলেরোমিটার, শব্দের তীব্রতা জানতে মাইক্রোফোন, মেটাল ডিটেক্টর হিসেবে ম্যাগনেটোমিটার ইত্যাদি।

 

স্বয়ংক্রিয় সঙ্গী

স্মার্টফোনের নিজস্ব বুদ্ধিমত্তা নেই। তবে আইএফটিটিটি বা জেপিয়ার অ্যাপের মাধ্যমে একে স্বয়ংক্রিয় করে তোলা যায়, যেমন- জিপিএস সিগন্যালের মাধ্যমে অফিসে বা মিটিংয়ে কোথায় সাইলেন্ট থাকবে তা ফোন নিজেই নির্ধারণ করে নিবে।এমনকি চোরের আগমনী বার্তা জানতে অ্যালার্মও বাজাতে পারবে স্মার্টফোন।

 

জীবন হাতের তালুতে

শুধু কল করা বা মেসেজ পাঠানো নয়, স্মার্টফোন কোন কাজে ব্যবহার করা যায় না তাই এখন খুঁজে বের করা কষ্টকর। ইন্টারনেটের কল্যাণে বিছানায় বসে অফিসের কাজ করা কিংবা গ্রামে বসে মঙ্গলের হালচাল জানা- সবই সম্ভব এ যন্ত্রের মাধ্যমে। চুল থেকে নখের প্রয়োজন জানতে বা প্রয়োজনীয় বস্তুর হদিস পেতে স্মার্টফোনের চেয়ে উত্তম উপায় বুঝি আর নেই।

তাই তো কেউ কেউ বলেন, জীবন এখন হাতের তালুতেই।

 

সীমানা ছাড়িয়ে

স্মার্টফোনের ব্যবহার এখন মাটির তল থেকে মহাকাশ পর্যন্ত বিস্তৃত। ২০১৩ সালে স্মার্টফোনচালিত একটি স্যাটেলাইট পাঠানো হয়েছে মহাশূন্যে। বিজ্ঞানীরা এমন একটি অ্যাপ তৈরি করেছেন স্মার্টফোনের ক্যামেরার মাধ্যমে যা ব্যাকটোরিয়া ও ভাইরাস চিহ্নিত করতে পারে।

ইন্দোনেশিয়ায় বনদস্যুদের ঠেকাতে ব্যবহৃত হচ্ছে স্মার্টফোন, যা গাছ কাটার করাত চিহ্নিত করে সংকেত দিতে পারে।

এছাড়া জিপিএস ব্যবহার করে স্বয়ংক্রিয় গাড়ি তৈরিতে স্মার্টফোনের ব্যবহার নিয়েও গবেষণা চলছে।

 

sentbe-top