সৌদি যাত্রা: বিনা মূল্যের ফরম ১০০ টাকায়

form-fillup
ফরম পূরণ করছেন সৌদি আরব যেতে ইচ্ছুকরা। বুধবার প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সামনে থেকে ছবিটি তুলেছেন আলোকচিত্রী মহুবার।

নিবন্ধনের জন্য ফরম তোলা, পূরণ করা ও জমাদানে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন সৌদি আরব যেতে ইচ্ছুকরা। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের ডিজিটাল মেলা, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় এবং জনশক্তি কার্যালয়ে গিয়ে নানা ধরনের হয়রানির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ অনেকের।

সরেজমিনে দেখা যায়, সৌদি আরবের সঙ্গে সরকারের চুক্তির পর বুধবার সকাল থেকেই এসব স্থানে ঢল নামে হাজার হাজার মানুষের। নিবন্ধন করতে গিয়ে বিনা মূল্যের ফরম ২০ থেকে ১০০ টাকায় কিনতে হচ্ছে তাদের। এছাড়া ফরম পূরণ করতে এসব মানুষকে অতিরিক্ত ৫০ থেকে ১০০ টাকা ও ব্যাংকে ফি জমা দেওয়ার ক্ষেত্রে দ্বিগুণ কিংবা চারগুণ টাকা গুণতে হচ্ছে। আর সেই সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়ানোর যন্ত্রণা।

এজন্য মন্ত্রণালয়ের অব্যবস্থাপনা ও সরকারের ভুল সিদ্ধান্তকে দায়ী করছেন নিবন্ধন করতে আসা এ সব মানুষ।

তারা বলছেন, যেখানে লাখ লাখ মানুষ নিবন্ধন করতে ইচ্ছুক সেখানে খুবই কম সময় শুধু মন্ত্রণালয় ও জনশক্তি অফিসে গিয়ে নিবন্ধন করা সম্ভব নয়। তাছাড়া ফরম বিতরণ ও জমা নেওয়ার ডেস্ক কম থাকায় হয়রানির শিকার লাখ লাখ মানুষ।

ফরম জমা দিতে আসা মিরপুরের শাহাবুদ্দিন বলেন, সৌদি আরবে বিনা খরচে লোক নেবে; নিবন্ধন করতে আসলাম। গতকাল বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কেন্দ্র থেকে ফ্রি দেওয়া ফরম সংগ্রহ করেছি ৫০ টাকায়। পূরণ করে আজ জমা দিতে এসে দেখি হাজার হাজার মানুষ লাইনে দাঁড়িয়ে। ৪ ঘণ্টা অপেক্ষা করেও জমা দিতে পারিনি। বরং মানুষ ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ধাক্কায় প্রাণ ওষ্ঠাগত।

তিনি বলেন, সবাই জানে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ফরম জমা দেওয়ার শেষ তারিখ। তাই হুমড়ি খেয়ে পড়েছে হাজার হাজার মানুষ। তবে মন্ত্রণালয়ের প্রস্তুতি কয়েক শ’ মানুষের হওয়ায় হয়রানির শিকার সবাই। ফরম বিতরণ ও জমা নেওয়ার অনেক ডেস্ক রাখা উচিৎ ছিল বলে মনে করেন তিনি।

saudi-form
ফরম নিতে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন সৌদি যেতে ইচ্ছুকরা। বুধবার প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সামনে থেকে ছবিটি তোলা।

একই ভোগান্তির শিকার নোয়াখালীর আমিনুল ইসলাম বলেন, খুব সকালে এসে বিনামূল্যের ফরম নিলাম ১০০ টাকায়। পূরণ করে ৫ ঘণ্টা দাঁড়িয়ে আছি। কখন জমা দিতে পারবো তার ঠিক নেই।

তিনি বলেন, কোথায় জমা দেওয়া যাবে তা সঠিকভাবে জানানো হয়নি। বার বার বিভিন্ন লাইন পরিবর্তন করতে হয়েছে। বিরক্ত হয়ে মন্ত্রণালয়ের ৩ তলায় স্থাপিত ডেস্ক ভাংচুর হয়েছে বলে জানান তিনি।

নিবন্ধনে হয়রানির বিষয়ে জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক শামসুন্নাহার বলেন, নিবন্ধন চলমান প্রক্রিয়া। এখন মেলা উপলক্ষে শুধু বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কেন্দ্রে ডেস্ক খোলা হয়েছে। এত মানুষের নিবন্ধনের জন্য আমাদের এ মুহূর্তে প্রস্তুতি নেই।

সৌদি আরবের জন্য যে পরিমাণ লোক সমাগত হয়েছে তাদের জন্য নতুন ডেস্ক খোলার মতো সামর্থ তাদের নেই বলে উল্লেখ করেন তিনি।

সূত্রঃ অর্থসূচক