sentbe-top

উত্তর কোরিয়ার কিছু বিরল ছবি

বিশ্বের অন্যতম বিচ্ছিন্ন দেশ উত্তর কোরিয়া। সে দেশের কয়েকটি অঞ্চলে বার্তা সংস্থা এপি-র একদল সাংবাদিককে শর্ত সাপেক্ষে ঘুরে বেড়ানোর অনুমতি দিয়েছিল সরকার। তাদের তোলা কিছু বিরল ছবি নিয়েই আজকের পরিবেশনা।

n-koreaনির্জন সড়ক
উত্তর কোরিয়ায় প্রায় ২৫ হাজার কিলোমিটার সড়কপথ রয়েছে। এর মধ্যে সাংবাদিকরা ২,১৫০ কিলোমিটারেরও বেশি সড়ক পাড়ি দিয়েছেন। ছবির এই রাস্তাটি উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্য হোয়ানঘায়-এর।

n.koreaআগুন ধরিয়ে রান্না
রায়ানগাং রাজ্যের এই ব্যক্তিটি আলু ও মুরগি রান্নার জন্য আগুন ধরিয়েছেন। এপি-র সাংবাদিকদের ঘোরাঘুরির শর্ত ছিল তাঁরা কোনো ব্যক্তির সাক্ষাৎকার নিতে পারবেন না৷ আর ছবি প্রকাশের আগে দেখিয়ে নিতে হবে।

n.koreaপূজনীয় পাহাড়
ছবিটি ‘মাউন্ট পেকটু’ নামক পাহাড়ি এলাকার। উত্তর কোরীয়রা মনে করেন এই এলাকা থেকেই তাঁদের পূর্বপুরুষরা এসেছেন। এছাড়া উত্তর কোরীয় বিপ্লবের সঙ্গেও পাহাড়টির নাম জড়িয়ে আছে। সবমিলিয়ে সে দেশের নাগরিকদের কাছে মাউন্ট পেকটু নামেই একটি পূজনীয় স্থান।

n.koreaসাধারণ কৃষক
রায়ানগাং রাজ্যের এই কৃষক পরিবার গরু নিয়ে কোথাও যাচ্ছেন। সাংবাদিকরা রাজধানী পিয়ংইয়ং ছেড়ে বাইরে যাওয়ার পথে ছবিটি তুলেছেন।

n.koreaস্কুলের শিশুরা রাস্তা ঠিক করতে যাচ্ছে
হামগং রাজ্যের এই শিশুরা তাদের এলাকার রাস্তা ঠিক করতে বের হয়েছে। পিয়ংইয়ং এবং ওনসান শহরের মধ্যে থাকা ২০০ কিলোমিটার রাস্তা সে দেশের সবচেয়ে ভালো সড়ক। এর বাইরে রাস্তাগুলোর অবস্থা ভালো নয়।

n.koreaদারিদ্রতা লুকিয়ে রাখা
বার্তা সংস্থা এপি-র সাংবাদিকদের সঙ্গে সবসময় সরকারি কর্মকর্তারা ছিলেন। তাই সে দেশের নাগরিকদের আসল অবস্থা পুরোপুরি দেখতে পারেননি তাঁরা। তবে যেটুকু দেখেছেন তাতে তাঁদের মনে হয়েছে, বেশিরভাগ মানুষেরই একটা ভালো বাসস্থানের ব্যবস্থা করার সামর্থ্য নেই। আর এই ছবির মতো রেস্টুরেন্টে খেতে যাওয়া তো দূরের কথা।

s.koreaস্থানীয় খাবার, বিয়ার
একদল উত্তর কোরীয় তাদের স্থানীয় খাবার ও স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত বিয়ার দিয়ে পিকনিকে মেতে উঠেছেন।

s.koreaখাদ্য সরবরাহের সংগ্রাম
উত্তর কোরিয়ার চার-পঞ্চমাংশ জমিই চাষের অনুপযোগী। তাই দেশের মানুষের জন্য খাদ্যের যোগান দেয়া সরকারের জন্য একটু কষ্টকরই।

s.koreaকোনো কথা নয়
সাংবাদিকরা শুধু এই রেললাইনের ছবিই তুলতে পেরেছেন। ছবিতে যাদের দেখা যাচ্ছে তাদের সঙ্গে কথা বলার অনুমতি ছিল না। সফরের পুরোটা সময় এভাবেই কেটেছে সাংবাদিকদের। তারপরও সফর শেষে এক সরকারি কর্মকর্তা তাঁদের জানান, তাঁদের নাকি নজিরবিহীন প্রবেশাধিকার দেয়া হয়েছে!

sentbe-top