cosmetics-ad

এবার মালয়েশিয়ায় আ’ লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে প্রতারণা

Malayasia-awamieage

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে মালয়েশিয়ায় চলছে চাঁদাবাজি, মানবপাচার ও আদম ব্যবসা। আর এসবের স্বার্থে রাজনৈতিক দলের অঙ্গ-সংগঠনের পরিচয় দিয়ে চলছে গ্রুপিং। তাদের দ্বন্দ্ব কখনো কখনো গড়াচ্ছে সংঘর্ষে। দেশ ও আওয়ামী লীগ সরকারের ইমেজ সংকট তৈরি করছে এসব দুবৃর্ত্তরা। তবে এরা কেউই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কর্মী বা সদস্য নয় বলে জানিয়েছেন দলটির নীতি নির্ধারণী ফোরামের নেতারা।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নূহ উল আলম লেলিন বলেন, ‘দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বিদেশে বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলের কোন অঙ্গ-সংগঠন থাকতে পারে না।’

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রকে অমান্য করে মালয়েশিয়ায় কতিপয় ব্যক্তি লুটছে সুযোগ-সুবিধা। বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়া কোন দেশেই রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন না থাকলেও, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নামে চলছে প্রকাশ্য চাদাঁবাজি। যা দেশের বৃহৎ রাজনৈতিক দলের ইমেজ ক্ষুন্ন করছে বলে মনে করছেন প্রবাসীরা।

অভিযোগ রয়েছে, আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে কুয়ালালামপুর থেকে শুরু করে মালয়েশিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চলেও কমিটি দিয়ে যাচ্ছেন গুটিকয়েক লোক। আর এ উপলক্ষে অর্ধশিক্ষিত বা অশিক্ষিত শ্রমিকদের কাছ থেকে রিঙ্গিত হাতিয়ে নিচ্ছেন তারা। ব্যবহার করছেন নিজেদের স্বার্থে।

প্রবাসী বাংলাদেশিরা বলেন, দেশে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং মালয়েশিয়ার রাজনৈতিক দলগুলোও এখানে এতো ব্যস্ত নয়, আমাদের ‘মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ’ যতো ব্যস্ত। দেশ থেকে আওয়ামী লীগের কোন নেতা এলে কুয়ালালামপুর এয়ারপোর্টে এরা বিশাল মিছিল নিয়ে হাজির হয়। শ্লোগান দিতে থাকে। প্রায়ই বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশিদের এ আচরণে অসন্তোষ প্রকাশ করে আসছে। এরপরও থামছে না এসব রাজনীতির চর্চা।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস বলেন, মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের মতো দেশের বাইরে হাজার হাজার শাখা রয়েছে। তবে গঠণতন্ত্র অনুযায়ী তারা এটা করতে পারে না। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিদেশে কোন শাখা নেই।

তবে নিজের স্বাক্ষর থাকার বিষয়ে ফারুক খান বলেন, মালয়েশিয়ায় নতুন কমিটি বানানোর লক্ষ্যে ৩১ জনের আহ্বায়ক কমিটি করা হয়েছে। সেখানে আমার একটা স্বাক্ষর রয়েছে। তাতে আগামী ৬ মাসের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেয়ার কথা বলা হয়েছে। আশা করছি অক্টোবরের মধ্যে দিয়ে দেবে।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের নিয়ম অনুযায়ী, বিদেশে রাজনৈতিক দলের অঙ্গসংগঠন থাকতে পারে না। তবে এরা আমাদের আদর্শিক সংগঠন। সরাসরি কোন অংশ নয়।

এ বিষয়ে মালয়েশিয়ার রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সেখানে অভিবাসীদের রাজনৈতিক দল গঠনের বিষয়টিতে কড়া হুঁশিয়ারি রয়েছে। এ ধরনের রাজনৈতিক দলের কার্যক্রম চালানো হলে আইনানুযায়ী বিচারের ব্যবস্থা রয়েছে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, মালয়েশিয়া শাখার নামে প্যাড ব্যাবহারের বিষয়টি স্বীকার করেছেন রেজাউল করিম রেজা। তিনি বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, মালয়েশিয়া বলে কোন শাখা নেই। তবে আমরা বঙ্গবন্ধুর অনুসারীরা এর নাম দিয়েছি, মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ। যেহেতু নির্বাচন বিধিমালা অনুযায়ী প্রবাসে আওয়ামী লীগের কোন শাখা সংগঠন থাকতে পারবে না, তাই আমরা বঙ্গবন্ধুর অনুসারীরা করেছি মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ। যেমন, লন্ডন আওয়ামী লীগ, নিউইয়র্ক আওয়ামী লীগ ইত্যাদি।

তবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মালয়েশিয়া শাখার প্যাড সম্পর্কে তিনি বলেন, প্যাডটি হয়তো পুরনো।(বাংলানিউজ২৪)