cosmetics-ad

সামার ক্যাম্পে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরল চার কোরিয়ান হাইস্কুল ছাত্র, এখনো নিখোঁজ একজন

অনলাইন প্রতিবেদক, ২০ জুলাই ২০১৩:

মেরিন সামার ক্যাম্পে গিয়ে নিখোঁজ পাঁচ স্কুল ছাত্রের চারজনের মৃতদেহ পাওয়া গেছে। তায়েন কোস্টগার্ড গতকাল শুক্রবার ভোর ছয়টা পাঁচ মিনিটে লি জুন-হিউং ও ৬টা ২০ মিনিটে জিন উ-সুক নামের ১৭ বছর বয়সী দুইজনের লাশ উদ্ধার করে। একইদিন বিকেল চারটার দিকে তারা আরও দুটি মৃতদেহ উদ্ধার করে যেগুলো কিম ডং-হান ও জাং তায়ে-ইন নামক আরও দুই স্কুল ছাত্রের বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। পাঁচজনের অপর একজন এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত নিখোঁজ ছিলেন।

°øÁÖ»ç´ëºÎ°í ½Ã½Å Àξç
একজন ছাত্রকে উদ্ধার করে নিয়ে আসছে কোস্টগার্ড

লী এবং জিনের মরদেহ দুটি উপকূল থেকে ৬-৭ মিটার দূরে পাওয়া যায়। বিকেলে ভাটার পানি সরে গেলে কিম ও জাংয়ের মৃতদেহ আনমিয়ন্দু উপকূল থেকে কিছুটা দূরে পড়ে থাকতে দেখা যায়। ছাত্রদের অভিভাবকরা সন্তানকে জীবিত ফিরে পাবার আশায় উদ্ধারকর্মীদের সাথে রাতভর অবস্থান করছিলেন। মৃতদেহ দেখে তাঁরা কান্নায় ভেঙে পড়েন।

যেভাবে ঘটনা ঘটলো

কংজু ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি হাইস্কুল থেকে ১৯৩ জন ছাত্রছাত্রী দক্ষিণ চুনছন প্রদেশের তেয়ানে মেরিন সামার ক্যাম্পে অংশ নিতে গিয়েছিল। স্কুল কর্তৃপক্ষ মিলিটারী স্টাইলে এই মেরিন সামার ক্যাম্পে প্রতিবছরের মতো এবারও ছাত্রছাত্রীদেরকে পাঠায়। গত বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টার দিকে ৯০ জন ছাত্রকে নিয়ে দুইজন প্রশিক্ষক ট্রেনিং করাচ্ছিল। এক পর্যায়ে একজন প্রশিক্ষক ২০ জন ছাত্রকে কোমর পানি না আসা পর্যন্ত সমুদ্রের দিকে হাটার নির্দেশ দেন। পানিতে কিছুদুর হাটার পর হঠাৎ প্রায় ১ মিটারের একটি ডেউ সবাইকে পানিতে ভাসিয়ে নিয়ে যায়। এতে ১৫ জন ফিরে আসতে পারলেও ৫ জন নিখোঁজ ছিল। এর পরপরই ২১টি কোস্টগার্ড শিপ নিয়ে ২৪২ জন কোস্টগার্ড নিখোঁজ ছাত্রদের উদ্ধার কার্যক্রম শুরু করে।