cosmetics-ad

একদিনের জন্য গুগল বন্ধ থাকলে কী হবে?

base_1479750131-google

ডিজিটাল দুনিয়ার সর্বাধিক পরিচিত প্রতিষ্ঠানটির নাম গুগল। জিমেইল, ইউটিওব, গুগল ড্রাইভ, গুগল ম্যাপ, জনপ্রিয়তম ইন্টারনেট ব্রাউজার ক্রমসহ বিনামূল্যের সফটওয়্যার ইত্যাদি ইন্টারনেটভিত্তিক সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠান এটি। সহজেই প্রয়োজনীয় তথ্য পৌঁছে দেয়ার ক্ষেত্রে তাদের বিকল্প এখনো তৈরি হয়নি। সারা বিশ্বের ইন্টারনেট ব্যবহারীরা অনেকাংশেই এই প্রতিষ্ঠানটির ওপর নির্ভরশীল। প্রতিষ্ঠার পর থেকে নিরবচ্ছিন্ন সেবা দিয়ে যাচ্ছে তারা; এক মুহূর্তের জন্যও থেমে থাকেনি।

এখন ভাবুন তো, হঠাৎ একদিন বন্ধ হয়ে গেল জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন গুগল। অনুমান করুন কী কী ঘটতে পারে! কিছু ঘটনা নিয়ে আলোচনা করা যাক:

নো গুগল সার্চ!
অধিকাংশ মানুষই ইন্টারনেটে তথ্য অনুসন্ধানে গুগল সার্চ ব্যবহার করেন। তারা মনে করেন, তাদের জীবন থেকে গুগল সার্চ ইঞ্জিন হারিয়ে গেলে এটা হবে এক প্রকার বিশ্বাসঘাতকতার কাজ।

অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনে ঝুকবে ব্যবহাকারীরা!
গুগলের সেবা বন্ধ হয়ে গেলে বিশ্বের অধিকাংশ ইন্টারনেট ব্যবহারকারী সরাসরি ‘ডাকডাকগো’ (duckduckgo.com) সার্চ ইঞ্জিনে তথ্য অনুসন্ধানে যাবে। আর এটি ব্যবহারকারীর অবস্থান শনাক্ত করে না। সার্চ ইঞ্জিন ব্যবসার নেতৃত্বেও থাকবে এটি। এছাড়া মাইক্রোসফটের সার্চ ইঞ্জিন ‘বিং’ আপনাকে চমত্কার সব ব্যাকগ্রাউন্ড ছবি দিয়ে আপনাকে স্বাগত জানাবে, আপনার জন্য হতে পারে একটি ভালো বিকল্প।এছাড়া আরো আছে ইয়াহু, বাইদু, এওল, আস্ক ডটকম, এক্সাইট, উলফর‌্যাম আলফা ও ইয়ানডেক্স ইত্যাদি।

তথ্য অনুসন্ধানে বাড়বে বিড়ম্বনা
তথ্যানুসন্ধানে বিড়ম্বনা বাড়তে পারে, কারণ এখন শিশু থেকে বৃদ্ধ সকলেই গুগলে যা অনুসন্ধান করেন তাই অনায়াসে পেয়ে যান। সার্চ ইঞ্জিনটি বন্ধ হলে তা আর সহজ হবে না। যদিও আরো অনেক বিকল্প সার্চ ইঞ্জিন আছে।

বঞ্চিত হবেন নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করা থেকে
গুগলের ‘আই এম ফিলিং লাকি’ বাটন চমত্কার সব ডুডলস দেয়। মুখে উচ্চারিত প্রশ্নের উত্তরের জন্য এটি এক নিমিষেই সবচেয়ে উত্কৃষ্ট অনুসন্ধান ফলাফলটি তুলে ধরে। তাই হাতের নাগালে গুগল নেই মানে ‘আই এম ফিলিং লাকি’ বাটনটিও নেই।

হ্রাস পাবে চুরি করা তথ্যের সমাহার
বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত অনুসন্ধান মাধ্যম হওয়া সত্ত্বেও এটি ব্যবহারকারীদের চুরি করা শত শত কনটেন্ট লিংক প্রদর্শন করে। তাই গুগল বন্ধ হলে হ্রাস পাবে চুরি করা তথ্যের সমাহারও। তবে তার স্থান দখল করে নেবে ‘কিক অ্যাস টরেন্ট’ ও ‘দি পাইরেট বে’ নামক বিকল্প ডাইরেক্টরিগুলো। চুরি করা তথ্যের অনুসন্ধান ফলাফলে তাদের নাম সবার আগে আসে।

নগদ অর্থ হারাবে বাণিজ্য খাত
অগণিত বাণিজ্য প্রতিষ্ঠান ব্যবসা পরিচালনায় গুগল ওয়ার্ক অ্যাপস ব্যবহার করে থাকে। তাই একদিনের জন্য গুগল বন্ধ হলে তাদের বড় ধরনের অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখে পড়তে হবে।

ভুল ধরে পুরস্কৃত হওয়ার দিন শেষ হবে
গুগলের কাছে যারা তাদের কোনো সেবার ত্রুটি সংশোধনী প্রতিবেদন দেয়, গুগল তাদের মোটা অংকের অর্থ পুরস্কৃত করে। গুগল বন্ধ হলে এই সব সফটওয়্যার জিনিয়াস যারা এসব ত্রুটি ধরেই বলতে গেলে জীবিকা নির্বাহ করে বা মনের খোরাক জোগায় তাদের একদম নিরামিষ দিন পার করতে হবে। হিসেব খুব সোজা, নো গুগল, নো বাগস, নো বাউন্টি।

ক্ষতিগ্রস্ত হবে গুগলও
গুগলের রাজস্বের বড় একটি অংশ আসে বিজ্ঞাপন থেকে। তাই প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ থাকা তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের জন্য সুখকর হবে না নিশ্চয়ই। বরং ব্ল্যাক আউট ডে টি কোম্পানিটির শেয়ারের সূচক নিচের দিকেই চালিত করবে।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে শঙ্কা, ক্রোধ ও সমালোচনার জোয়ার
ফেসবুক, টুইটারের মতো সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে গুগল নিয়ে আলোচনা, সমালোচনার জোয়ার বইতে পারে। আর গুগল প্লাস হয়ে যাবে নিশ্চুপ।

নতুন সার্চ ইঞ্জিন উন্মোচন করতে পারে ফেসবুক
গুগল বন্ধ হয়ে গেলে তাতে ফেসবুকের কোনো মাথাব্যথা হবে না। উল্টো তারা একটি নতুন সার্চ ইঞ্জিন উন্মোচন করে বসতে পারে। কারণ এরই মধ্যে তাদের তৈরি সার্চ ইঞ্জিনটি ফেসবুক সংক্রান্ত কোটি কোটি অনুসন্ধান অনুরোধ সফলভাবে উপস্থাপন করে।

গণমাধ্যমগুলোর শীর্ষ সংবাদ
অবিশ্বাস্য সেই দিনটি যদি সত্যি উপস্থিত হয়, তাহলে বিশ্ব মিডিয়া দিনটিকে ‘গুগল শাট ডাউন ডে’ ঘোষণা করলেও অবাক হওয়ার কিছু নেই। ওই দিনটির প্রতি মুহূর্তেই গুগলের বন্ধ হয়ে যাওয়ার খবরটি প্রচার করবে তারা। ব্রেকিং নিউজ হবে ‘বন্ধ হয়ে গেলো জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন গুগল’।

অ্যালফাবেট থেকে হারিয়ে যাবে ‘জি’ বর্ণ
ভাবছেন, গুগল বন্ধ হলে অ্যালফাবেট থেকে জি বর্ণ হারিয়ে যাওয়ার কি আছে? আসলে গুগলের মূল কোম্পানি অ্যালফাবেটের কথা বলা হচ্ছে। গুগল বন্ধ মানে মূল কোম্পানির তালিকাতে ওই দিনের জন্য অন্তত জি বর্ণটির অস্তিত্ব ম্রিয়মাণ তো হবেই।

ছাগল পুষবে কে?
এটা কিন্তু তামাশা নয়! সত্যিই ছাগল পুষবে কে? গুগলের সদরদপ্তরের আঙিনার ঘাস কখনোই মেশিন দিয়ে কাটা হয় না। বরং তারা কিছু ছাগল সপ্তাহখানেকের জন্য ভাড়া করে নিয়ে আসে। ফলে ছাগল যেমন খাবার পায় তেমনি কার্বন নিঃসরণ ছাড়াই পরিচ্ছন্ন থাকে তাদের আঙিনা। লাভবান দু’পক্ষই। তাই গুগল না থাকলে ছাগল পুষবে কে?

নো লাইভ ট্রাফিক আপডেট
অধিকাংশ স্মার্টফোন ব্যবহারকারী এখন শহরের বিভিন্ন স্থানে গমনে গুগল ম্যাপ ব্যবহার করেন। এছাড়া ওই দিন যদি কেউ অপরিচিত নতুন শহরে যান তাহলে তাকে তো বেশ ঝামেলা পোহাতে হবে। কারণ গুগল বন্ধ থাকলে তিনি তো আর গুগল ম্যাপের নির্দেশনা পাবেন না।

গুগলের ক্ষমা প্রার্থনা!
গুগল বন্ধ হলে অবশ্যই প্রতিষ্ঠানটি ক্ষমা চেয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে একটি ‘অ্যাপোলজি লেটার’ দেবে। হয়তো সেখানে বন্ধ হওয়ার কারণও উল্লেখ থাকতে পারে। খুব দ্রুত সমস্যা সমাধান করে আবারো চালু হওয়ার আশ্বাসও থাকবে নিশ্চয়ই।

তবে সে দিনটি আসুক, তা আমরা কখনোই চাই না। সকালের সূর্যোদয়ের মতো গুগলের সেবার নিত্য উপস্থিতি থাকুক সর্বক্ষণ। কফিতে চুমুক দিতে দিতে গুগলে তথ্য অনুসন্ধানও অব্যাহত থাকুক!

সূত্র: ফসিবাইট ডটকম