ইউরোপে বিষাক্ত ডিম নিয়ে তোলপাড়

eggনেদারল্যান্ডসের ফার্মগুলো থেকে আসা ডিমগুলো বিষাক্ত হতে পারে; জুন মাসেই এ তথ্য জানতে পেরেছিলেন বলে স্বীকার করেছে বেলজিয়াম কর্তৃপক্ষ। তবে প্রতারণামূলক তদন্তের মাধ্যমে এ তথ্য ছড়ানো হতে পারে সন্দেহে তারা তখনই বিষয়টি প্রকাশ করেনি বলে জানিয়েছেন বেলজিয়ামের খাদ্য নিরাপত্তা সংস্থার এক মুখপাত্র।

বিবিসি’র খবরে বলা হয়, নেদারল্যান্ডস থেকে আসা ডিম পরীক্ষা করে সেগুলোতে ফিপ্রোনিল নামে একটি রাসায়নিক উপাদান পাওয়া গেছে। এ রাসায়নিক মানবদেহে প্রবেশ করলে কিডনি, লিভার ও থাইরয়েড গ্ল্যান্ড মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এটিকে মাঝারি মাত্রার বিষ বলে ঘোষণা করেছে। খামারে পালন করা প্রাণীদের শরীরের উকুন মারতে সাধারণত এই রাসায়নিকটি ব্যবহার করা হয়। এরই মধ্যে বেলজিয়াম, জার্মানি ও নেদারল্যান্ডসের সুপারমার্কেট থেকে বিষাক্ত ডিম সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

বেলজিয়ামের খাদ্য নিরাপত্তা সংস্থার এক মুখপাত্র ক্যাটরিন স্ট্রাজিয়ের সাংবাদিকদের বলেন, “জুনের শুরুর দিকে এক পোল্ট্রি কোম্পানির অভিযোগের ভিত্তিতে নেদারল্যান্ডস থেকে আমদানি করা ডিমে ফিপ্রোনিল জনিত একটি সম্ভাব্য সমস্যার কথা আমরা জানতে পারি।”

“আমরা তাৎক্ষণিকভাবে তদন্ত শুরু করি এবং প্রসিকিউটরকে বিষয়টি জানাই। কিন্তু বিষয়টি সম্ভাব্য প্রতারণাও হতে পারে, তাই তখনই বিষয়টি প্রকাশ করা হয়নি।”

eggsডিমে বিষাক্ত উপাদান থাকার খবর প্রকাশ পাওয়ার পর এ বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জার্মানির কৃষিমন্ত্রী। আলোচনার জন্য সোমবার তিনি বেলজিয়ামের কৃষিমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পরিকল্পনাও করেছেন। তবে জার্মানিতে এরই মধ্যে এক কোটির বেশি বিষাক্ত ডিম বিক্রি হয়ে গেছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন দেশটির এক কর্মকর্তা।

ইউরোপে ডিম ও ডিমজাতীয় পণ্য রপ্তানি করা সবচেয়ে বড় দেশ নেদারল্যান্ডস, বিশ্বের মধ্যেও বড় দেশগুলোর একটি এটি। দেশটিতে বছরে গড়ে প্রায় এক হাজার কোটি ডিম উৎপাদিত হয়; যার ৬৫ শতাংশই ইউরোপের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করে তারা। বিষাক্ত ডিম নিয়ে তদন্ত শুরুর পর নেদারল্যান্ডসে প্রায় ১৮০টি খামার সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।