sentbe-top

চীনে টাইফুন হাতোর আঘাতে নিহত ১২

typhoonশক্তিশালী টাইফুন হাতোর আঘাতে চীনের দক্ষিণাঞ্চলে ১২ জন প্রাণ হারিয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছে আরো কয়েকশ মানুষ। জাপানি ভাষায় হাতো মানে পায়রা। বুধবার সকালে হংকংয়ে ঘণ্টায় ৬০ কিলোমিটার বেগে আঘাত হানে হাতো। পরে চীনের দিকে অগ্রসর হয় এই শক্তিশালী টাইফুন। হংকংয়ের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, শক্তিশালী এই টাইফুন এখন দুর্বল হয়ে গেছে।

বুধবার দুপুরের দিকে হাতোর আঘাতে গুয়াংডং প্রদেশের জুহাই শহরে ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছে। ওই এলাকায় প্রচণ্ড ঝড় ও বৃষ্টিপাত হয়েছে।

typhoonহংকংয়ে ১০ নম্বর সর্বোচ্চ সতর্ক সংকেত দেয়া হয়েছে। ২০১২ সালে টাইফুন ভিসেন্ট আঘাত হানার পর এই প্রথম দেশটিতে দশ মাত্রার শক্তিশালী টাইফুন আঘাত হানল। টাইফুনের আঘাতে হংকং এবং নিকটবর্তী ম্যাকাও শহরের জনজীবন বিপর্যস্ত হচ্ছে।

টাইফুনের কারণে আকস্মিক ঝড় ও বৃষ্টিপাতে বিভিন্ন স্থানে বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন অঞ্চলে বিধ্বংসী হয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ঘটিয়েছে হাতো।

চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম শিনহুয়া জানিয়েছে, টাইফুনের আঘাত থেকে বাঁচাতে প্রায় ২৭ হাজার মানুষকে নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ভূমিধ্বস, বন্যা এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের সতর্কতা জারি করেছে কর্তৃপক্ষ।

typhoonহংকংয়ের আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, হাতো ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৭৫ কিলোমিটার বেগে আঘাত হেনেছে। ম্যাকাও শহরে হাতোর আঘাতে এখন পর্যন্ত আটজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া চীনের মূল ভূখণ্ডে আরো চারজন টাইফুনের আঘাতে প্রাণ হারিয়েছে।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের খবরে বলা হয়েছে, বুধবার ব্যবসা-বাণিজ্য, স্কুল, রেল স্টেশন এবং বিমানবন্দর বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

sentbe-top