sentbe-top

এরদোয়ানকে ধরাশায়ী করতে ডলার-ফাঁদ পেতেছে ইসরায়েল

erdoganতুরস্কের জুনের নির্বাচনকে দেশটির ইতিহাসে টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে ধরা হচ্ছে। এই নির্বাচনের মাধ্যমে দেশটি সংসদীয় ব্যবস্থা থেকে প্রেসিডেন্ট শাসিত ব্যবস্থায় যাবে। বিজয়ী হলে বর্তমান প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান হবেন নতুন ব্যবস্থায় ক্ষমতাধর প্রথম প্রেসিডেন্ট।

তবে এরদোয়ান যাতে ফের নির্বাচিত হতে না পারেন এজন্য পশ্চিমা মিত্রদের নিয়ে ডলার-ফাঁদ পেতেছে ইসরায়েল। তুরস্কে বড় বড় কোম্পানিগুলোকে বিনিয়োগে নিরুৎসাহিত করা এবং নানান কারসাজির মাধ্যমে ডলারের বিপরীতে তুর্কি মুদ্রা লিরার মান রেকর্ড পরিমাণ অবনমন ঘটনো হয়েছে।

গত এক বছরে ডলারের বিপরীতে লিরার দাম ২০ শতাংশ কমেছে। গত ২৩ মে এটা সর্বনিম্ন কমে দাঁড়িয়েছে ৪.৯৩ লিরা সমান ১ ডলারে। অথচ ইউরোপে টানা মন্দা থাকা সত্ত্বে ঈর্ষনীয় প্রবৃদ্ধি ধরে রেখেছে তুরস্ক।

ডলার কারসাজি ঠেকাতে শনিবার পূর্বাঞ্চলীয় ইরজুরুম শহরে এক নির্বাচনী সমাবেশে সমর্থকদের উদ্দেশে এরদোয়ান বলেন, ‘ভাইয়েরা আমার, যাদের বালিশের নিচে ডলার ও ইউরো আছে, তারা গিয়ে সেগুলো লিরায় পরিবর্তন করুন। আমরা একসঙ্গে এই খেলা রুখে দেব।’

আঙ্কারা সব সময় দাবি করে আসছে, ডলার ও ইউরোর বিপরীতে লিরার অবনমন তুরস্কের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র। নাম উল্লেখ না করে এজন্য বিদেশি শক্তিগুলোকে দায়ী করে আসছে তুর্কি কর্তৃপক্ষ।

এরদোয়ান হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, আর্থিক খাত যদি আমাদের বিনিয়োগকারী এবং উদ্যোক্তাদের বিরুদ্ধে এভাবে কাজ করতে থাকে, তবে জেনে রাখো তোমাদের এজন্য কঠিন মূল্য দিতে হবে।

লিার’র বিপরীতে ডলার কারসাজির বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন ইসরায়েলি শিক্ষাবিদ ও বিশ্লেষক এডি কোহেন। তিনি ইসরায়েলের বার-ইলান ইউনিভার্সিটির ফ্যাকাল্টি মেম্বার এবং বেগিন-সাদাত স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ সেন্টারের বিশ্লেষক।

‘তুর্কি লিরা সমর্থন করুন’ হ্যাশট্যাগ দিয়ে আরবিতে এক টুইটে কোহেন বলেন, ‘তুরস্কের ইতিহাসে তুর্কি লিরার সবচেয়ে বেশি অবনমন হয়েছে। তুরস্ক থেকে বহিষ্কারের পর বিমানবন্দরে ইসরায়েলি রাষ্ট্রদূতকে অপমান করার পর থেকে আকস্মিক লিরার মান কমতে থাকে।’

এরদোয়ানের বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে কোহেন বলেন, ‘তুমি কি জানো না- বিশ্বের অর্ধেক সম্পত্তির মালিক কেবল ইহুদি পরিবারগুলো, যারা ইসরায়েলের প্রাথমিক সমর্থক।’

এই ইসরায়েলি বিশ্লেষক হুঁশিয়ার করে দিয়ে বলেন, বিশ্বব্যাপী ইসরায়েলি লবির কূট-তৎপরতার কারণে আগামীতে তুরস্কের অর্থনীতি আরো খারাপ অবস্থার মুখোমুখি হবে।

সৌজন্যে- ২৪লাইভনিউজপেপার

sentbe-top