cosmetics-ad

বাবার ইচ্ছা পূরণে হেলিকপ্টার ভাড়া

helicopter

প্যারালাইজড মুজিবুর রহমান চলৎশক্তিহীন হয়ে শয্যাশায়ী হয়ে আছেন। কিন্তু তার খুব ইচ্ছা, ছেলের বউকে নিজের হাতে তুলে নিয়ে আসার। আর ছেলে মিশানের ইচ্ছা যেভাবেই হোক বাবার ইচ্ছা পূরণ করতে হবে। প্রেমিকার ইচ্ছা বিশ্ব ভালোবাসার দিনই তাদের বিয়ে হবে। এমন দিনে বাবা ও প্রেমিকার দু’জনের ইচ্ছাই পূরণ করলেন প্রকৌশলী মহিদুল ইসলাম মিশান।

বৃহস্পতিবার বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে বিয়ে করেন মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার লেবুতলা গ্রামের মুজিবুর রহমানের ছেলে মিশান। দেড়শ’ বরযাত্রী নিয়ে সড়কপথে যশোরের বাঘারপাড়ায় যান তিনি। আর তার বাবা আসেন হেলিকপ্টারে চড়ে। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে বাবার ইচ্ছামতো তার হাতেই তুলে দেওয়া হয় ছেলের বউকে।

এক্সিম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিশান ছয় মাস আগে পারিবারিক পছন্দে বিয়ে করেন যশোরের বাঘারপাড়ার মহিরণ গ্রামের জামসেদ খান চঞ্চলের মেয়ে নাদিরা খান জেমিকে। বিয়ের সময় তেমন আনুষ্ঠানিকতা হয়নি। জেমি বরিশাল প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে হিসাববিজ্ঞান বিভাগে লেখাপড়া করেন। জেমি জানিয়েছেন, তার পরীক্ষা আর বিশেষ দিনের অপেক্ষার জন্য বিয়ের অনুষ্ঠান করতে দেরি হয়েছে। মিশানের সঙ্গে আলোচনা করেই তারা ভালোবাসা দিবসে অনুষ্ঠানের তারিখ ঠিক করেন। এজন্য তারা ছয় মাস অপেক্ষা করেন।

মিশান জানান, তার বাবা যেভাবেই হোক অনুষ্ঠানে থাকার ইচ্ছা পোষণ করেন। তার ইচ্ছা পূরণ করার জন্যই হেলিকপ্টার ভাড়া করা হয়। তারা বরযাত্রী নিয়ে বুধবার বিকেলে রওনা দেন। রাতে যশোরের হোটেল থেকে সকালে কনের বাড়িতে যান। পরের দিন দুপুর ১টার দিকে তার বাবা হেলিকপ্টারে করে বিয়েবাড়িতে পৌঁছান। বাবার ইচ্ছা পূরণ করতে পেরে দারুণ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন তিনি।