cosmetics-ad

ফেরি ডুবির ঘটনায় ক্যাপ্টেনের ভূমিকা ‘হত্যার সামিল’ : প্রেসিডেন্ট পার্ক

সিউল, ২২ এপ্রিল ২০১৪:

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট পার্ক সোমবার বলেছেন, পাঁচদিন আগে ৪৭৬ জন আরোহী নিয়ে ডুবে যাওয়া ফেরিটির ক্যাপ্টেন ও ক্রুদের আচরণ গ্রহণ যোগ্য নয় এবং ‘হত্যার সামিল’।

PYH2014042103730031500_P2

দক্ষিণ কোরিয়ার সিনিয়র সহকারিদের সঙ্গে বৈঠকে পার্ক বলেন, ‘এ ফেরি দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে ক্যাপ্টেন ও কয়েকজন ক্র সদস্যের পদক্ষেপ নিতান্তই অসামঞ্জস্যপূর্ণ, অগ্রহণযোগ্য ও হত্যার সামিল’।

তিনি বলেন, ‘এ ফেরি দুর্ঘটনা কেবলমাত্র আমার হৃদয়কে নয়, এটি দক্ষিণ কোরিয়ার সকল নাগরিকের হৃদয়কে নাড়া দিয়েছে এবং এতে আমরা সকলে গভীরভাবে শোকাহত ও বিক্ষুব্ধ।’ উল্লেখ্য, নিমজ্জিত এ ফেরির নিখোঁজ যাত্রীদের স্বজনদের সঙ্গে বৃহস্পতিবার সাক্ষাত করার সময় স্বজনরা তাকে প্রশ্নবানে জর্জরিত করেন। নিখোঁজদের অধিকাংশ শিক্ষার্থী।

নিখোঁজদের পরিবারের সদস্যরা ফেরি ডুবির ঘটনায় ওই সরকারের ভূমিকার সমালোচনা করে বলেন, প্রাথমিক উদ্ধার প্রচেষ্টা অপর্যাপ্ত ও ব্যবস্থাপনার অভাব ছিল। পার্ক বলেন, এটা ক্রমেই স্পষ্ট হচ্ছে যে, জাহাজটি যখন ডুবতে শুরু করে তখন ক্যাপ্টেন লী জুন-সিউক যাত্রীদের উদ্ধার কাজ শুরু করতে অযথা বিলম্ব করেন এবং যাত্রীদের ফেলে দ্রুত কেটে পড়েন।

উল্লেখ্য, গত শনিবার অবশেষে ওই ক্যাপ্টেন ও অপেক্ষাকৃত অনভিজ্ঞ থার্ড অফিসারকে গ্রেফতার করা হয়। জাহাজটি ডুবতে শুরু করার সময় থার্ড অফিসার এর দায়িত্বে ছিলেন।

তিনি বলেন, ‘বৈধতা ও নৈতিকতার দিক থেকে এটি সম্পূর্ণ অকল্পনীয়। তিনি আরো বলেন, এ দুর্ঘটনায় মালিক থেকে শুরু করে নিরাপত্তা পরিদর্শক ও ক্রুসহ সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের বিষয় তদন্ত করা হবে এবং দায়িদের ‘ফৌজদারি অপরাধে’ জবাবদিহি করতে হবে।’