cosmetics-ad

দক্ষিণ কোরিয়ায় করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭, প্রবাসীদের সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার পরামর্শ

corona-korea

করোনাভাইরাসের নতুন প্রাদুর্ভাবের স্থান দক্ষিণ কোরিয়ায় আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। চীনের পর কোরিয়ায় সবচেয়ে বেশিসংখ্যক মানুষ এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। দেশটি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দক্ষিণ কোরিয়ায় এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে ৩১৫০ আক্রান্ত হয়েছেন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭ জনে দাঁড়িয়েছে। আক্রান্ত ব্যক্তিদের চীনের কোনো নাগরিকের সঙ্গে বা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত ব্যক্তির সঙ্গে কোনো সম্পৃক্ততা পাওয়া না যাওয়ায় ভাইরাসটি নিয়ে নতুন উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে।

দেশটিতে বসবাসকারী বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি চরম আতংকের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। যদিও এখন কোনো বাংলাদেশি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

প্রবাসী বাংলাদেশিদের সর্বোচ্চ সতর্ক, সচেতন থেকে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানিয়েছে কোরিয়ার নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম। এ ছাড়া যে কোনো প্রয়োজনে দূতাবাসের সহায়তা নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। এ লক্ষ্যে মিশনের হটলাইন ২৪ ঘন্টার চালুর রাখারও ঘোষণা দিয়েছেন রাষ্ট্রদূত।

সম্প্রতি এক ভিডিও বার্তায় দেশটির রাষ্ট্রদূত, ‘দক্ষিণ কোরিয়া সরকার দেশটিতে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত সর্বোচ্চ সতর্ক সংকেত রেড অ্যালার্ট জারি করেছে। তারা এ ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এর কেন্দ্রস্থল হিসেবে দেগু ও ছংদো এলাকাকে চিহ্নিত করেছে এবং স্পেশাল কেয়ার হিসেবে ঘোষণা করেছে। তবে এই ভাইরাসটি দেশের বিভিন্ন শহরে ছড়িয়ে পড়ছে। সরকার এ সংকট থেকে উত্তরণের জন্য দেশি এবং বিদেশি সকল নাগরিকদের কাছ থেকে সহযোগিতা কামনা করেছে।

দক্ষিণ কোরিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশিদের আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়ে রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম বলেন, ‘দেশটিতে বসবাসরত বাংলাদেশিরা সুস্থ আছেন এবং এখন পর্যন্ত কোনো বাংলাদেশি এ ভাইরাসে আক্রান্ত হননি। তবে সবাইকে আবারও এ বিষয়ে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার বিনীত অনুরোধ জানানো হচ্ছে’।

রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘যেহেতু হাঁচি, কাশি বা সংস্পর্শ থেকে এই ভাইরাস ছড়ায় তাই বাংলাদেশিদের ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতার নিয়ম-কানুন মেনে চলার জন্য এবং জনসমাগমস্থল এড়িয়ে চলার জন্য অনুরোধ করা হলো। প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হবেন না এবং গণপরিবহন এড়িয়ে চলবেন’।

আবিদা ইসলাম বলেন, বাংলাদেশিদের সেবা দেওয়ার জন্য সিউল দূতাবাসের ২৪ ঘণ্টা খোলা আছে। ভিসা সংক্রান্ত জটিলতা বা যেকোনো প্রয়োজনে দূতাবাসের হটলাইনে নম্বর ০১০২১৮১৪০৫৬ এ যোগাযোগ করলেই সেবা পাওয়া যাবে।

চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন জানিয়েছে, শুক্রবার দেশটিতে করোনাআক্রান্ত ৪৭ জন মারা গেছেন। এর মধ্যে দুটি বাদে সবগুলোই ভাইরাসের উৎপত্তিস্থল হুবেই প্রদেশের। এখন পর্যন্ত দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা ২ হাজার ৮৩৫ জন।

চীনে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪২৭ জন, এর মধ্যে প্রায় সবই হুবেইয়ে। দেশটিতে এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৯ হাজার ২৫১ জন।

চীনা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত ভাইরাস আক্রান্ত ৩৯ হাজার ২ জনকে তারা চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ করে তুলেছেন। বিশ্বের অন্তত ৫৪টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। চীনের মূল ভূখণ্ডের বাইরে অন্তত ৮৭ জন কোভিড-১৯ রোগী মারা গেছেন।