cosmetics-ad

বাংলাদেশ থেকে ইমাম নেবে দক্ষিণ কোরিয়া, বেতন ১২ লাখ ওন

seoul-centeral-mosque
সিউল কেন্দ্রীয় মসজিদ (ফাইল ছবি)

বাংলাদেশি ইমাম নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে দক্ষিণ কোরিয়ার খাপ্পাই মসজিদ ও ইসলামিক সেন্টার কর্তৃপক্ষ। সম্প্রতি প্রকাশিত ওই বিজ্ঞপ্তিটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আসা মাত্রই নির্ধারিত নাম্বারে অনেকেই ফোন করছেন বলে সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে।

যোগ্যতা: বিজ্ঞপ্তিতে যোগ্যতা হিসেবে কামিল অথবা দাওরা হাদিস কিংবা মুফতি সমমানের কথা বলা হয়েছে। তবে মাওলানা বা কোরআনে হাফেজরা অগ্রাধিকার পাবেন। এছাড়া বিশেষ যোগ্যতা হিসেবে চাওয়া হয়েছে আরবি, বাংলা, ইংরেজি ও উর্দু ভাষার দক্ষতা। অগ্রাধিকার পাবে বিশুদ্ধ কোরআন তেলাওয়াতকারী।

বেতন ভাতা: নিয়োগ হলে ইমামকে প্রাথমিকভাবে মাসিক বেতন হিসেবে ১২ লাখ কোরিয়ান ওন দেওয়া হবে। যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১ লাখ ‍টাকা। পর্যায়ক্রমে বাড়ানো হবে বেতন। সঙ্গে থাকবে আবাসন ব্যবস্থাও।

আগ্রহী প্রার্থীদের আগামী ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে ([email protected] অথবা [email protected]) জীবন বৃত্তান্ত ও সব মূল সনদপত্রের স্ক্যান কপিসহ ইমেইল করতে বলা হয়েছে।
এছাড়াও বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাতটা থেকে আটটার মধ্যে প্রার্থীরা ৮২০১০৫৯১৬৮৬৫৪, ৮২০১০৫৯৩৮৪৫৭৯ নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারবেন।

জানা গেছে, এই মসজিদে প্রায় ৪০০ জন মুসল্লি জমায়েত হয় ঈদের জামাতে। মসজিদ কমিটিতে বাংলাদেশিসহ আফগানিস্তান ও কাজাকাস্তানের সদস্যও রয়েছে। এছাড়াও পাকিস্তানি, শ্রীলঙ্কা, উজবেকিস্তান, ইন্দোনেশিয়াসহ আরও বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকজন এখানে নামাজ আদায় করে থাকে।

এ বিষয়ে মসজিদ কমিটির সদস্য মো. ইফতেখার বলেন, ইমাম হিসেবে যিনি নিয়োগ পাবেন প্রথমে তিনি আসবেন এবং বছর খানেক পরে ফ্যামিলিসহ নিয়ে আসতে পারবেন।

মসজিদ কমিটির সদস্য রফিক আহমেদ চৌধুরী বলেন, আমাদের আগে ফান্ডিং সমস্যা ছিল কিন্তু এখন সমস্যা নেই। ১৩ বছর মাসাল্লা ছিল অস্থায়ী, তিন বছর আগে জমি ক্রয় করে এখন আমরা স্থায়ী মসজিদ তৈরি করেছি। কোরিয়া মুসলিম ফেডারেশনের (কেএমএফ) সাহায্য সহযোগিতা নিয়ে সম্পূর্ণ নিরপেক্ষভাবে, যোগ্যতাসম্পন্ন ভালো একজন ইমাম নিয়োগ করার আশা প্রকাশ করেন তিনি।