sentbe-top

মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট এখন জাতিসংঘের সহযোগী প্রতিষ্ঠান

mother-language-instituteমহান ২১ ফেব্রুয়ারির শহীদদের স্মৃতিবিজড়িত আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট জাতীয় প্রতিষ্ঠান থেকে জাতিসংঘের ইউনেস্কোর সহযোগী প্রতিষ্ঠানে উন্নীত হয়েছে। এটি এখন ইউনেস্কোর দ্বিতীয় ক্যাটাগরির ইনস্টিটিউট।

আজ রোববার ইউনেস্কোর সদর দপ্তরে ইউনেস্কোর চলমান ৩৮তম সাধারণ অধিবেশনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটকে ইউনেস্কোর ক্যাটাগরি-২ ইনস্টিটিউটে উন্নীত করার প্রস্তাব সর্বসম্মতভাবে পাস হয়েছে। এ অধিবেশনে জাতিসংঘের ১৯৫টি দেশ ও আটটি সহযোগী দেশের শিক্ষামন্ত্রীগণ ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করছেন।

ইউনেস্কোর ক্যাটাগরি-২ প্রতিষ্ঠান হিসেবে এখন থেকে এ প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও প্রসারিত হবে। ইউনেস্কো পরিচালিত ‘মাতৃভাষা-আশ্রয়ী শিক্ষা’, ‘টেকসই উন্নয়নের জন্য শিক্ষা’ ইত্যাদি কার্যক্রমে সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করার সুযোগ পাবে।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট এখন থেকে বাংলাদেশ সরকারের পাশাপাশি ইউনেস্কোর লোগো ব্যবহার করতে পারবে।

ইউনেস্কোর সাথে পারস্পরিক জ্ঞান বিনিময় ছাড়াও দক্ষতা বৃদ্ধি, প্রশিক্ষণ এবং কৌশলগত কর্মসূচি বাস্তবায়নের সুযোগ পাবে।

বিভিন্ন দেশের বিলুপ্তপ্রায় ভাষা সংরক্ষণ, লালন ও সম্প্রসারণেও এ প্রতিষ্ঠান কাজ করবে। বিশ্বে এ ধরণের প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা এখন এটিসহ ৯৫টি। এর মধ্যে এশিয়া মহাদেশে আছে চারটি।

২০০১ সালের ১৫ মার্চ জাতিসংঘের তৎকালীন মহাসচিব কফি আনানের উপস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজধানীর সেগুন বাগিচায় এই প্রতিষ্ঠানের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ইউনেস্কো প্রতিনিধিদল আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের অবকাঠামো, জনবল, কর্মকাণ্ড ইত্যাদি কয়েকবার সরেজমিনে পরিদর্শন করেছে।

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি মাতৃভাষা বাংলার মর্যাদা রক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত মিছিলে পাকিস্তানী শাসকদের বুলেটের আঘাতে সালাম, বরকত, রফিক, জব্বারসহ অসংখ্য ছাত্র-জনতা শহীদ হন। ১৯৯৯ সালে ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কো বাংলাদেশের ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। বর্তমানে সারা বিশ্বে এ দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে।

উল্লেখ্য, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বর্তমানে ইউনেস্কোর ৩৮তম অধিবেশনে অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। প্রতিনিধিদলে শিক্ষাসচিব মো. নজরুল ইসলাম খান, ইউনেস্কোতে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত শহীদুল ইসলাম, বিএনসিইউ-এর সচিব মঞ্জুর হোসেন ও ফ্রান্সে বাংলাদেশ মিশনের ফাস্ট সেক্রেটারি ফারহানা আহমেদ চৌধুরী যোগ দিয়েছেন।

আরো উল্লেখ্য, ইউনেস্কোর চলমান সাধারণ অধিবেশনে সর্বসম্মতভাবে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ২০১৫-১৭ মেয়াদে ইউনেস্কোর ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন।

sentbe-top