sentbe-top

আনিসুল হকের জানাজায় সাধারণ মানুষের ঢল

Anisul sesh bidayরাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে মেয়র আনিসুল হকের জানাজার নামাজে অংশ নিতে সাধারণ মানুষের ঢল নামে। সেখানে শনিবার বিকেল ৪টা ১৯ মিনিটে মরহুমের জানাজা সম্পন্ন হয়। মন্ত্রী, এমপিসহ রাজনৈতিক, ব্যবসায়িক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের ব্যক্তিবর্গ ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ জানাজায় অংশ নেন।

এর আগে বিকাল ৩টা ২০ মিনিটে তার মরদেহ বনানীর বাসভবন থেকে আর্মি স্টেডিয়ামে পৌছায়। সেখানে আনিসুল হকের মরদেহে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়। রাষ্ট্রপতির পর সেখানে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফসহ ক্ষমতাসীন দলের নেতারা। আওয়ামী লীগের পাশাপাশি বিএনপির নেতাকর্মীরাও আনিসুল হকের জানাজায় অংশ নেন।

মেয়রকে শেষবারের মতো দেখতে দুপুরের আগ থেকেই সমাজের নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ আর্মি স্টেডিয়ামে আসতে থাকে।
এর আগে আনিসুলের লাশ বহনকারী বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইটটি দুপুর ১ টায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। বিমানবন্দরে পরিবারের পক্ষ থেকে আনিসুল হকের মরদেহ গ্রহণ করেন মেয়রের ছোটভাই সেনাপ্রধান জেনারেল আবু বেলাল মো. শফিউল হক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরসহ বিশিষ্টজনেরা।

বেলা দেড়টার দিকে আনিসুল হকের মরদেহ বহনকারী গাড়ি বনানীর ২৩ নম্বর সড়কের বাসায় পৌঁছে। এ সময় স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। সৃষ্টি হয় এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের।

এর কিছুক্ষণ পর বাসায় আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে তিনি প্রায় ৩০ মিনিট অবস্থান করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী আনিসুল হকের স্বজনদের প্রতি সমবেদনা জানান। তার আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন।

গত ২৯ জুলাই সপরিবারে যুক্তরাজ্য সফরে যান আনিসুল হক। সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়লে ১৩ আগস্ট তাকে লন্ডনের ন্যাশনাল নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তার মস্তিষ্কে প্রদাহজনিত রোগ ‘সেরিব্রাল ভাস্কুলাইটিস’ শনাক্ত করেন চিকিৎসকরা। এরপর তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল।

ধীরে ধীরে অবস্থার উন্নতি ঘটলে তাকে গত ৩১ অক্টোবর আইসিইউ থেকে রিহ্যাবিলিটেশন সেন্টারে স্থানান্তর করা হয়। গত সোমবার তার রক্তে সংক্রমণ ধরা পড়লে তাকে পুনরায় আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। শেষে গত বৃহস্পতিবার তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

২০১৫ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে তিনি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন। এর আগে তিনি ব্যবসায়ীদের সর্বোচ্চ সংগঠন এফবিসিসিআই এবং বিজিএমইএ সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
আনিসুল হক ১৯৫২ সালে ২৭ অক্টোবর নোয়াখালীর কবিরহাটে জন্মগ্রহণ করেন।

sentbe-top