অল্পের জন্য রক্ষা পেল বাংলাদেশ বিমানের ৬৫ যাত্রী

bangladesh-bimanশাহ আমানতে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের জরুরি অবতরণের ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ‘জরুরি অবতরণ’ করতে গিয়ে ফেটে গেল রাষ্ট্রায়ত্ত বিমান সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের চাকা। ঢাকা থেকে সিলেট যাওয়া ওই ফ্লাইটটিতে ৬৫ জন যাত্রী ছিল বলে জানা গেছে। যাত্রীরা সবাই নিরাপদে আছেন।

বুধবার বিকেল ৪টা ৩০ মিনিটে সিলেটের ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এ ঘটনা ঘটে। বিমানের বিজি-১৬০১ ফ্লাইটটির ল্যান্ডিং গিয়ার কাজ না করায় জরুরি অবতরণ করার সময় চাকা ফেটে যায় বলে বিমান সূত্রে জানা গেছে।

যদিও বিমান কর্তৃপক্ষ এটাকে ‘জরুরি অবতরণ’ বলতে নারাজ। তাদের দাবি, এটি জরুরি অবতরণ নয়। তবে অবতরণের সময় বিমানের ড্যাস-৮ এয়ারক্রাফটটির চাকা ফেটেছে এ কথা সত্য।

এয়ারক্রাফটটির পাইলট ক্যাপ্টেন নেওয়াজ জানান, আকাশে থাকা অবস্থায় যান্ত্রিক ত্রুটির বিষয় ধরা পড়ে। বিষয়টি যাত্রীদেরও অবহিত করা হয়।

তিনি আরও বলেন, নিয়মানুযায়ী ফ্লাইট অবতরণ করেছি। এর চেয়ে বেশি কিছু জানাতে তিনি বিমানের জনসংযোগ বিভাগে যোগাযোগ করতে বলেন।

একই কথা বলেন বিমানের জনসংযোগ বিভাগের মহাব্যবস্থাপক শাকিল মেরাজ। তিনি বলেন, ‘ইমার্জেন্সি ল্যান্ডিং করেনি। চাকা ফেটে গেলেও বিমানটির আরোহীরা নিরাপদে আছেন।’

ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সূত্র জানায়, উড়োজাহাজটি ল্যান্ডিংয়ের সময় ডান পাশের চাকায় সমস্যা দেখা দেয়। প্রথম চেষ্টায় অবতরণ করতে পারেনি। পরে দ্বিতীয়বারের চেষ্টায় ইমার্জেন্সি ল্যান্ডিং করে। তবে কোনো ক্ষয়ক্ষতির ঘটনা ঘটেনি।

এ বিষয়ে বিমানের ট্রাফিক কর্মকর্তা আজিজ বলেন, বিমানের চাকায় সামান্য সমস্যা হয়েছিল। কোনো ধরনের ক্ষয়ক্ষতি ছাড়াই ফ্লাইট অবতরণ করে।

স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সুব্রত ছিলেন ওই ফ্লাইটে। তিনি জানান, ইমার্জেন্সির কথা পাইলট যাত্রীদের জানান। বিষয়টি যাত্রীদের অবহিত করলে কিছুটা আতঙ্ক তৈরি হয়। যাত্রীদের কেউ কেউ তখন কান্নায় ভেঙে পড়েন বলেও জানান তিনি।