cosmetics-ad

অনুষ্ঠানে উপস্থিতি কম হওয়ায় মারধর করলেন এমপি

jinnah

বিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন নির্মাণের ফলক উন্মোচন অনুষ্ঠানে লোকজনের উপস্থিতি কম হওয়ায় ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও শিক্ষকদের গালাগাল করেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য শরীফুল ইসলাম জিন্নাহ। এক পর্যায়ে তিনি রাগ নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও সাংবাদিক সাইদুর রহমান সাজুকে মারধর করেন। এ ঘটনার ছবি তুলতে গেলে আরও দুই সাংবাদিকের ওপর হামলা চালান এমপির ছেলে হুসাইন শরীফ সঞ্জয়। এরপর তাদের ক্যামেরা ও মোবাইল ফোন কেড়ে নেন এমপির ছেলে ও তার লোকজন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শিবগঞ্জ উপজেলার মহাস্থান উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, মহাস্থান উচ্চ বিদ্যালয়ের চারতলা একাডেমিক ভবনের ফলক উন্মোচন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় বৃহস্পতিবার বিকেলে। প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি বগুড়া-২ আসনের এমপি শরীফুল ইসলাম জিন্নাহ। বিশেষ অতিথি ছিলেন তার বড় ছেলে যুব সংহতি নেতা সঞ্জয়। অনুষ্ঠানে সভাপতি ছিলেন বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও এমপির ভগ্নিপতি রফিকুল ইসলাম দুলাল। এ সময় অনুষ্ঠানে লোকজনের উপস্থিতি কম দেখে এমপি ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, সদস্য এবং শিক্ষকদের ওপর চড়াও হন। তিনি অকথ্য ভাষায় গালাগাল করতে থাকেন।

এক পর্যায়ে ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মহাস্থান প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাইদুর রহমান সাজু এমপিকে শান্ত হওয়ার জন্য অনুরোধ জানালে তিনি আরও উত্তেজিত হন এবং অনুষ্ঠানে লোক হলো না কেনো বলেই সাজুর শার্টের কলার ধরে কিলঘুষি মারতে থাকেন। পরে স্থানীয়রা ওই সাংবাদিককে এমপির কবল থেকে উদ্ধার করেন। মারধর করার সময় সাজুর সহকর্মী সুমন ও নুরুন নবী ছবি তোলার চেষ্টা করলে তাদের ওপর হামলা চালান এমপির ছেলে। সাজুসহ এ তিন সাংবাদিকের ক্যামেরা ও তাদের মোবাইল ফোন কেড়ে নেওয়া হয়।

এ ঘটনার প্রায় ৩ ঘণ্টা পর সাংবাদিকদের মেমোরি কার্ড ছাড়াই ফোন ও ক্যামেরা ফিরিয়ে দিয়ে এটাকে অনাকাঙ্ক্ষিত উল্লেখ করে সাজু ও সুমনের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন এমপির ছেলে। পরে বিষয়টি শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর কবীর ও থানার ওসি মিজানুর রহমানকে স্থানীয় সাংবাদিকের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

সাংবাদিক সাইদুর রহমান সাজু বলেন, অনুষ্ঠানে লোক কম হওয়ায় ওই বিদ্যালয়ের ছাত্রী আমার মেয়েসহ উপস্থিত লোকজনের সামনে এমপি ও তার ছেলে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেছে।

এ ব্যাপারে এমপি শরীফুল ইসলাম জিন্নাহ বলেন, অনুষ্ঠানের দাওয়াত কার্ড ঠিকমতো না পৌঁছানোর কারণে সাজুর ওপর ক্ষুব্ধ হয়েছিলাম। তবে কোনো মারধরের ঘটনা ঘটেনি। আর সাজু সাংবাদিক হিসেবে নয়, কমিটির সদস্য হিসেবে সেখানে উপস্থিত ছিল।

সৌজন্যে- সমকাল