cosmetics-ad

এবার ‘হামলার শিকার’ ফখরুলের স্ত্রী-মেয়ে

fakrul-wife

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের পক্ষে প্রচারে নেমে হামলার শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন তার স্ত্রী ও মেয়ে। বুধবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও পৌরসভার বসিরপাড়া এলাকায় ফখরুলের স্ত্রী রাহাত আরা বেগম এবং মেয়ে মির্জা শামারুহ হামলার শিকার হন।

স্থানীয় ছাত্রলীগের ৮/১০ জন নেতাকর্মী রামদা নিয়ে হামলা চালায় বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন ফখরুলের স্ত্রী। পরে তারা নেতাকর্মীদের সহায়তায় কোনো রকম প্রাণে বেঁচে আসেন বলে জানান। তবে ফখরুলের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নৌকা প্রতীকের রমেশ চন্দ্র সেন এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে রাহাত আরা বেগম নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘যারা অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে পাড়ায় পাড়ায় হামলা চালিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা দিচ্ছে তাদের সামলান। না হলে এই নির্বাচন কখনো সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য হবে না। কমিশন এবং প্রশাসনের উদ্দেশ্য বলেন যারা হামলা চালাচ্ছে তাদেরকে সামলান।

ফখরুলের স্ত্রী বলেন, ‘আমি জীবনে কখনো এরূপ অবস্থার সম্মুখীন হইনি। কোথাও যেতে পারব না, কারো কাছে ভোট চাইতে পারব না-এটা হতে পারে না। এ ধরনের নির্বাচন আমরা কেউ চাই না।’

ফখরুলের বাসায় জেলা বিএনপি আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান। তিনি ধানের শীষের কর্মীদের নানাভাবে হয়রানি ও গ্রেপ্তারের চিত্র তুলে ধরেন। এ সময় জেলা বিএনপির নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এর এক ঘণ্টা পর নৌকা প্রতীকের প্রার্থী কলেজপাড়ার নিজ বাসায় সংবাদ সম্মেলন করেন। সেখানে রমেশ চন্দ্র সেন বলেন, ‘ধানের শীষের কর্মীরা সংখ্যালঘু পরিবারের লোকজনের ওপর হামলা চালিয়ে, ঘর-বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে আতঙ্ক সৃষ্টির চেষ্টা চালাচ্ছে।’ তিনি ফখরুলের স্ত্রী-মেয়ের ওপর হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মকবুল হোসেন বাবু, সাধারণ সম্পাদক সাদেক কুরাইশি, সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আলম টুলু, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অরুনাংশু দত্ত টিটো প্রমুখ।