cosmetics-ad

ট্রাম্পের অভিবাসন পরিকল্পনায় সমস্যায় পড়বেন বাংলাদেশিরাও

usa-migrants

ডোনাল্ড ট্রাম্পের নতুন অভিবাসন পরিকল্পনায় সমস্যা পড়বেন বিভিন্ন দেশের অভিবাসীসহ বাংলাদেশিরাও। দেশটির বহুদিনের একটি রীতি অনুযায়ী নিজ দেশে নিরাপত্তাহীনতার কারণে যারা বিভিন্ন পথ ঘুরে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতেন এবং স্থায়ীভাবে বসবাসের আবেদন করার সুযোগ ছিল, এখন সেটি বন্ধ হয়ে গেল।

যুক্তরাষ্ট্র সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশনা অনুযায়ী, আদম দালালকে বিপুল পরিমাণ টাকা দিয়ে বিভিন্ন দেশ ঘুরে মেক্সিকো হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশকারী বাংলাদেশিরা এখন থেকে এসাইলাম পাবেন না। তবে তারা যদি মেক্সিকোতে অবতরণের পর সেখানে এসাইলাম প্রার্থনা করে না পান তাহলে সে আবেদন বিবেচনা করবে যুক্তরাষ্ট্র।

বুধবার ট্রাম্প প্রশাসনের পক্ষে এই নির্দেশ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র সুপ্রিম কোর্ট। সেন্ট্রাল আমেরিকা তথা হন্ডুরাস, সালভেদরিয়ান, গুয়াতেমালা এবং অপরাপর দেশের লোকজনকে দলে দলে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ ঠেকানোর অভিপ্রায়ে কয়েকমাস আগে ট্রাম্প প্রশাসনের জারিকৃত এই নির্দেশটি হাইকোর্ট স্থগিত করেছিল।

শুনানি শেষে বুধবার সেই স্থগিতাদেশ উঠিয়ে নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট বলেছেন যে, আমেরিকান সিলিভ লিবার্টিজ ইউনিয়নের দায়েরকৃত মামলাটি বিচারাধীন থাকাবস্থায় ট্রাম্পের নির্দেশ কার্যকর থাকবে। আর এই নির্দেশ বহাল হওয়ায় মেক্সিকো হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকে পড়ারাই শুধু এসাইলাম থেকে বঞ্চিত হবে না, সমুদ্র পথে যারা ঢুকবে তারাও বঞ্চিত হবে বলে মানবাধিকার সংগঠকরা উল্লেখ করেছেন। যারা বিমান যোগে এয়ারপোর্টে অবতরণ করবে তারা এ বিধির আওতায় থাকবে না।

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি সনিয়া সটোমায়ার এবং বিচারপতি রুথ ব্যাডার গিন্সবার্গ এ রায়ের সাথে দ্বিমত পোষণ করেছেন। তারা মন্তব্য করেছেন, বহুদিনের একটি রীতি অনুযায়ী নিজ দেশে নিরাপত্তাহীনতার কারণে যারা নানা পথ ঘুরে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতেন তাদের আবেদন করার সুযোগ ছিল।

সম্প্রতি ট্রাম্পের অভিবাসন বিরোধী মনোভাবের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের রুলিংয়ের এটি দ্বিতীয় ঘটনা। গত জুলাইতে প্রদত্ত এক রায়ে পেন্টাগণের আড়াই বিলিয়ন ডলারে মেক্সিকো সীমান্ত বরাবর উঁচু দেয়াল নির্মাণের পথ সুগম হয়েছে। গত বছরের শেষার্ধে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে এমন কয়েকটি দেশের নাগরিকের যুক্তরাষ্ট্রে আসার ওপর ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞাকে পুনর্বহাল করে একটি রায় দেয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছানোর যাত্রাপথ বিপজ্জনক। এছাড়া অসহায় হওয়ার কারণে প্রায়ই মধ্য আমেরিকার অভিবাসীরা প্রতিবেশী দেশের গ্যাংগুলোর কবলে পরে। মেক্সিকো এবং গুয়েতেমালা অভিবাসন প্রত্যাশীদের স্রোত সামাল দিতে পারবে কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে।

উল্লেখ্য যে, মেক্সিকোতে আদম পাচারকারি দালালদের দুই বাংলাদেশি সম্প্রতি এফবিআইয়ের হাতে গ্রেফতার হয়েছে। তাদেরকে টেক্সাসের কারাগারে রাখা হয়েছে এবং ফেডারেল কোর্টে বিচার শুরু হয়েছে। এ অবস্থায় বাংলাদেশের কেউ যেন দালালের খপ্পরে না পড়েন-সে পরামর্শ দিয়েছে আমেরিকা কমিউনিটির নেতারা।

সৌজন্যে- জাগো নিউজ