cosmetics-ad

ভারতকে ৩ রানে হারিয়ে ইমার্জিং এশিয়া কাপের ফাইনালে পাকিস্তান

pak

শ্বাসরুদ্ধকর এক সেমিফাইনাল। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বি দুই দলের মধ্যে লড়াই। কে জিতবে, কে হারবে? শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত বোঝা যাচ্ছিল না। মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম যেন রোমাঞ্চের পসরা সাজিয়ে বসেছিল ইমার্জিং এশিয়া কাপের প্রথম সেমিফাইনালে। রোমাঞ্চকর সেই ম্যাচে শেষ হাসি হাসলো পাকিস্তান। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বি ভারতকে মাত্র ৩ রানে হারিয়ে টুর্নামেন্টের ফাইনালে নাম লিখিয়েছে আনপ্রেডিক্টেবলরা।

টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমেছিল পাকিস্তান। ৭ উইকেটে ২৬৭ রানের চ্যালেঞ্জিং পুঁজি দাঁড় করান পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানরা। ভারতীয় বোলাররা তেমন সুবিধা করতে পারেননি।

পাকিস্তানের প্রথম ৭ ব্যাটসম্যানের সবাই কম বেশি রান পেয়েছেন। দুই ওপেনারই শক্ত ভিত গড়ে দেন। ওপেনিংয়ে নেমে উমর বিন ইউসুফ ৬৬ আর ওমর আলি খেলেন ৪৩ রানের ইনিংস। তিনে নামা রোহাইল নাজিরও করেন ৩৫ রান। ৪৭ রানে অপরাজিত থাকেন সাইফ বাদার। ভারতের পক্ষে ২টি করে উইকেট নেন শিভাম মাভি, সৌরভ দুবে আর ঋত্বিক সুকিন।

২৬৮ রানের লক্ষ্যে ভারতও দারুণভাবে এগিয়ে যাচ্ছিল। ওপেনার বেলুর রভি ৪৭ করে ফিরলেও তিনে নামা সানভির সিংয়ের (৭৬) দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে একটা সময় ২ উইকেটেই ১৭৯ রান তুলে ফেলেছিল ভারত। ইনিংসের তখনও প্রায় ২০ ওভারের মতো বাকি।

কিন্তু সানভির সিং রানআউট হওয়ার পরই ম্যাচ ঘুরে যায়। এরপর নিয়মিত বিরতিতেই উইকেট হারাতে থাকে ভারত। আরমান জাফরের (৪৬) পর চিন্ময় সুতার (অপরাজিত ২৮) চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু পাকিস্তানি বোলাররা এমনই টাইট বোলিং করেছেন, হাত খুলে খেলতে পারেননি ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ২৬৪ রানে থেমেছে তাদের ফাইনালে উঠার স্বপ্ন। পাকিস্তানের পক্ষে ২টি করে উইকেট নেন মোহাম্মদ হাসনাইন আর সাইফ বাদার।

ভারতের এই দলটিকে অবশ্য একটু আলাদা করে দেখতে হবে। ইমার্জিং এশিয়া কাপে বেশিরভাগ দলই কয়েকজন পরিচিত মুখ নিয়েছে। বাংলাদেশের যেমন আছেন সৌম্য সরকার, নাইম শেখরা। পাকিস্তানও এই ম্যাচে খেলিয়েছে জাতীয় দলের তারকা পেসার মোহাম্মদ হাসনাইনকে। কিন্তু ইমার্জিং কাপ থেকে বিদায় নেয়া ভারতের দলটিতে পরিচিত মুখ বলতে গেলে ছিল না।

তবে বিদায় তো বিদায়ই। ফাইনাল নিশ্চিত করা পাকিস্তান এখন তাদের শেষ প্রতিপক্ষের অপেক্ষায়। বাংলাদেশ আর শ্রীলঙ্কার মধ্যে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে যে দল জিতবে, তারাই শিরোপা লড়াইয়ে নামবে পাকিস্তানের বিপক্ষে।