cosmetics-ad

সৌদি আরবে বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী ৪২ হাজার রোহিঙ্গা

saudi-rohinga

সৌদি আরবের দাবি, ওই দেশে বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী ৪২ হাজার রোহিঙ্গা আছেন৷ তারা ওই রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে চায়৷ তবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন,সৌদি আরবের এধরনের তৎপরতার বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না৷

সংবাদমাধ্যমে কূটনৈতিক সূত্রের বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে ওই ৪২ হাজার রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেওয়া হয়৷ ১৩ জানুয়ারি আবুধাবিতে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতদের সম্মেলনেও সৌদি কতৃর্পক্ষ বিষয়টি তোলে৷ ১২ ও ১৩ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ও সৌদি আরবের যৌথ কমিশনের বৈঠক আছে ঢাকায়৷ সেই বৈঠকেও সৌদি আরব রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর বিষয়টি তুলতে পারে৷ পররাষ্ট্র দপ্তর বিষয়টি কিভাবে মোকাবেলা করবে তা নিয়ে কাজ করছে বলে জানা গেছে৷

সৌদি আরব জনিয়েছে, এই রোহিঙ্গারা ২০১২ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে সৌদি আরবে গেছেন৷ তারা বাংলাদেশি পাসপোর্টে গিয়ে সেখানে কাজও করেছেন৷ তাদের সবার কাজের অনুমতিপত্র আগেই শেষ হয়ে গেছে৷ ২০১৬ সালেও সৌদি আরব একবার বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে তুলেছিলো৷

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন অবশ্য ডয়চে ভেলেকে বলেছেন,‘‘বাংলাদেশের নাগরিক না হলে কারো বাংলাদেশি পাসপোর্ট পাওয়ার কথা নয়৷ যাদের বাংলাদেশি পাসপোর্ট আছে তারা বাংলাদেশি নাগরিক৷ সৌদি আরব এখন পর্যন্ত কোনো রোহিঙ্গাকে সেখান থেকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠায়নি৷ আর তারা ৪২ হাজার রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে চায় বলে কোনো চিঠি দিয়েছে কিনা আমার জানা নেই৷ সংবাদমাধ্যমে অনেক সময় অতিরঞ্জিত খবর ছাপা হয়৷’’

এই চিঠি যখন দেয়া হয় তখন পররাষ্ট্র সচিব ছিলেন শহীদুল হক৷ তিনি বলেন, ‘‘এবিষয়ে সর্বশেষ কি হয়েছে তা আমি এখন আর বলতে পারবনা৷ কারণ আমিতো আর এখন পররাষ্ট্র সচিব নই৷’’

সাবেক রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক বলেন, ‘‘আমি হজে গিয়ে সৌদি আরবে বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী রোহিঙ্গা দেখেছি৷ ১৯৭৮ সালে সৌদি আরবের মধ্যস্থতায় বাংলাদেশ ও পাকিস্তান আড়াই লাখ করে মোট পাঁচ লাখ রোহিঙ্গাকে পাসপোর্ট দিয়েছিল৷ সৌদি আরব যদি তাদের নিয়ে কথা বলে তাহলে তারা সেটা ঠিক করছে না৷ তবে এর পরে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশি পাসপোর্ট পেয়ে থাকলে তা তারা বৈধ পথে পায়নি৷ এটা একটি জটিল পরিস্থিতি৷

বাংলাদেশের এখন ভেরিফাই করে দেখতে হবে তারা কিভাবে পাসপোর্ট পেল৷ এর জন্য সৌদি সরকারেরও সহায়তা চাওয়া যায়৷ আরেকটি বিষয় হলো তারা যেভাবেই পাসপোর্ট পাক তারাতো আর বাংলাদেশের নাগরিক নয়৷ তাই সৌদি আরবের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করে তাদের ওয়ার্ক পারমিটের মেয়াদ বাড়িয়ে সেখানেই রাখার ব্যবস্থা করা দরকার৷’’

বর্তমান পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন জেদ্দায় অবস্থান করছেন৷ তার সাথে কথা বলা যায়নি৷ সৌদি আরবে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহকেও ফোনে পাওয়া যায়নি৷

সৌজন্যে- ডয়েচে ভেলে