cosmetics-ad

ধারাভাষ্য কক্ষে আতহার-সঞ্জয় কয়েক দফা বাকযুদ্ধ

শেষ বিকেলে ৩০ ওভার ব্যাটিংয়ের চ্যালেঞ্জ দিয়ে বাংলাদেশকে ফলোঅন করায় ভারত। sanjay_commentry

ম্যাচ বাঁচাতে মাঠে নেমেছেন তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েস। এমন সময় ধারাভাষ্য কক্ষে এই ম্যাচে বাংলাদেশের পরাজয় কিংবা ভারতের জয়ের সম্ভাবনা নিয়ে কয়েক দফা বাকযুদ্ধ হয়ে গেল দুই ধারাভাষ্যকার আতহার আলী খান ও সঞ্জয় মাঞ্জরেকারের মধ্যে।

৩০ ওভারের চেয়ে কম ওভারেও টেস্ট ম্যাচে বাংলাদেশের অল আউট হয়ে যাবার রেকর্ড আতহারকে মনে করিয়ে দিয়ে সঞ্জয় বলেন, ‘আতহার তুমি কি মনে করো যে এর মধ্যে বাংলাদেশ আবার অল আউট হতে পারে?’

আতহার বলেন, ‘না না না। আসলে এই ১৫-২০ ওভারের মধ্যে এটা হওয়ার তেমন কোনো সম্ভাবনা আমি দেখিনা।’

সঞ্জয় বলেন, ‘আতহার ২০০৪ সালে কিন্তু বাংলাদেশ একবার ভারতের বিপক্ষে চট্টগ্রামে মাত্র ২৬ ওভারেই অলআউট হয়ে গিয়েছিল।
আতহার বলিষ্ঠ কন্ঠে বলেন, ‘কিন্তু এটা ২০১৫!’

কিছুটা মনো:ক্ষুণ্ন হয়ে সঞ্জয় বলেন, ‘তুমি মনে হয় ভারতীয় দলকে পাত্তাই দিতে চাচ্ছো না।’

জবাবে আতহার বলেন, ‘বাংলাদেশকে ২০ ওভারের মাঝে অল আউট করে দেওয়া সম্ভব না, অন্তত এই পিচে না।’

এরপরই যোগ করেন, ‘ভারতীয় দলের প্রতি আমার যথেষ্ঠই সম্মান আছে, অশ্বিন, হরভজনরা বিশ্বমানের বোলার। কিন্তু আজ এটা সম্ভব না।’

আতহারের শেষের কথায় মৃদু হেসে সঞ্জয় জানান, ‘এখন তুমি বেশ কুটনৈতিকভাবে উত্তরটা দিলে!’

একই সাথে অবসান হয় হয় ধারাভাষ্যকক্ষের সাময়িক উত্তেজনার!

কিছুক্ষণ পরেই আতহার সঞ্জয়কে মনে করিয়ে দেন, ‘অল্প কিছুদিন আগেই খুলনা টেস্টে এই দুজনই(তামিম ও ইমরুল) ৩১২ রানের একটি রেকর্ড ভাঙ্গা জুটি গড়েছিলেন।’
এ কথা শুনে সঞ্জয় বলেন,’ঠিক এই কারণেই আমি ধারাভাষ্য কক্ষে আতহার আলী খানকে পছন্দ করি। অন্ধকার যতো গভীরই হোক, আতহার কোন না কোন আশার আলো খুঁজে বের করে!’

জবাবে দৃঢ় কন্ঠে আতহার বলেন, ‘আমি শুধু সঠিক পরিসংখ্যানটাই বলছি!’